মক্কানগরী নাক্কাসা বাজার আগের পরিবেশে ফিরেছে

Mokka.jpg

ইসকান্দর মিজান,মক্কা থেকে:

করোনার ভয়াবহ পরিস্থিতির কারনে দীর্ঘ ৩ মাষ সম্পুর্ন সেনাবাহিনীর নিয়ন্ত্রণে লকডাউন থাকার পর পবিত্র মক্কানগরীর মায়ানমার এবং বাংলাদেশী অধ্যুষিত এলাকা নাক্কাসা বাজারে আগের পরিবেশ ফিরে এসেছে।

নাক্কাসাসহ কয়েকটি এলাকা ঝুঁকিপূর্ণ চিহ্নিত করে জনসাধারণ চলাচলে সম্পুর্ন নিষিদ্ধ করেছিল সৌদি সরকার, পবিত্র মক্কানগরীর নাক্কাসায় বাঙালী এবং মায়ানমার-নাগরিকের বসবাস সবছেয়ে বেশি।

বাঙালীদের জনপ্রিয় বাজার নাক্কাসার কয়েকজন ব্যবসায়ীর সাথে কথা বলে জানা যায়, করোনা শুরু হওয়ার পর থেকে তারা কোন প্রকার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুলতে পারেনি, রুম থেকে বের হওয়ার কোনপ্রকার সুযোগ ছিলনা তাদের। এমন কি ২০-২৫ বছর বিদেশ জীবনে কঠিন সময় পার করেছেন হাজার হাজার প্রবাসী-ব্যবসায়ীরা এবং ক্ষতিগ্রস্তও হয়েছেন হাজার হাজার শ্রমিক।
এরপরও দির্ঘ ৩ মাসের অধিক সময় বন্দিজীবন থেকে আবার নতুনভাবে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুলতে পেরে আনন্দিত তারা।

সরজমিন ঘুরে দেখা যায়, আগের মত স্বাভাবিকভাবে চলছে বাঙালি ও মায়ানমার অধ্যুষিত নাক্কাসা বাজার। তবে আগে যেভাবে ভ্রাম্যমাণ হকাররা অলিগলিতে তাদের ভ্যান নিয়ে ব্যবসা করত, এখন করোনা পরিস্থিতির কারনে আর অনুমতি দিচ্ছেনা পুলিশ, সার্বক্ষণিক নিয়ন্ত্রণে রেখেছে পুরো এলাকাটি।

প্রবাসীদের কাছে নাক্কাসা বাজার জনপ্রিয় হওয়ার কারণ, বাহিরের শপিংমল গুলোতে সবকিছুর দাম বাড়তি তাই বাংলাদেশীরা এখানে এসে সুবিধামত ক্রয় করতে পারে, মাছ, মাংশ, শাক সবজি, কাঁচা তরী তরকারীসহ নিত্য প্রয়োজনীয় বাজার স্বল্পমূল্যে। সেইজন্য এই বাজার মক্কার সকল প্রবাসীদের কাছে খুবই জনপ্রিয়।

সৌদি সুত্রে জানা যায়,এই এলাকায় শুরু থেকে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা সবছেয়ে বেশি হওয়ায় চারদিকে জনসাধারণ চলাচল বন্ধ করে দিয়ে সেনাবাহিনী মোতায়েন করা হয়, সেখানে স্থাপন করা হয় অস্থায়ী করোনা টেস্ট এর জন্য হাসপাতাল প্রবাসীদের দেওয়া হয় চিকিৎসা সেবা। যদি পরিস্তিতি স্বাভাবিক হয় তাহলে আগের ন্যায় আবার হকাররা ব্যবসা করতে পারবে।