আপডেটঃ
চট্টগ্রামের কর্ণফুলীতে পুনরায় মাল্টি চ্যানেল শ্লিপওয়ে নির্মাণ শুরুআজ চকরিয়া আসছে আইজিপি ড. জাবেদ পাটোয়ারীটেকনাফে ‘ডাকাত আলম’ শীর্ষ ডাকাত নিহতচলে গেলেন ব্রাজিলকে হলুদ জার্সি এনে দেয়া মানুষটিচবির ৫২তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী আজপ্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা শুরু হচ্ছে আজপ্রধানমন্ত্রী’র কাছে ছাত্রলীগ নেতার খোলা চিঠি!কক্সবাজার ও রামুতে বিভিন্ন মাদ্রাসা পরিদর্শনকালে আল্লামা শাহ আহমদ শফী কওমি শিক্ষার গুরুত্ব অনুধাবন করেই সরকার কওমি সনদের স্বীকৃতি দিয়েছেঢাকা টেস্টে বাংলাদেশের বিশাল জয়কক্সবাজার প্রেসক্লাবের সভাপতি মাহবুবর রহমান সম্পাদক আবু তাহের চৌধুরীচকরিয়া পৌরসভা যুবলীগ নেতা মোঃ বেলাল উদ্দিন ফরহাদের মৃত্যুতে রামু উপজেলা যুবলীগের শোকসোলাতানিয়া কেজি এন্ড নুরানী একাডেমীর পি.এস.সি পরীক্ষার্থীদে বিদায় ও সংবর্ধনা অনুষ্ঠান সম্পন্ন‘জনবিচ্ছিন্ন বিএনপি জামাত জ্বালাও পোড়াও এবং মানুষ হত্যার গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে’ত্রুটি কাটিয়ে পুরোদমে চট্টগ্রামে গ্যাস সরবরাহকর্ণফুলীতে ‘সাঁকো’ সংগঠনের উদ্যোগে পি.এস.সি পরীক্ষার্থীদের ফ্রি কোচিং সেবা ও বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত

খালেদা জিয়ার সাজা বেড়ে ১০ বছর

Khaleda-BNP.jpeg

ওয়ান নিউজ ডেক্সঃ জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা দিয়াকে পাঁচ বছরের সাজা দিয়েছিল বিচারিক আদালত। সেই সাজা থেকে খালাসের আবেদন করেছিলেন তিনি। অন্যদিকে, দুর্নীতি দমন কমিশন তার সাজার আরো বাড়ানোর আবেদন করেছিল।

দুটি আবেদনের নিষ্পত্তি করে আদালত আজ মঙ্গলবার খালেদা জিয়ার সাজা পাঁচ বছর থেকে বাড়িয়ে ১০ বছর করেছেন।

মামলার আরেক আসামি বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান আইনের দৃষ্টিতে পলাতক থাকার পরিপ্রেক্ষিতে আপিল করতে পারেননি। তাই হাইকোর্ট রায়ে তা সাজার বিষয়ে কিছু বলেনি। আইনজীবীরা বলছেন, এ অবস্থায় তারেক রহমানকে বিচারিক আদালতের দেয়া ১০ বছরের সাজাই বহাল থাকলো।

প্রসঙ্গত, গত ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়াকে ৫ বছর কারাদণ্ড ও অর্থদণ্ড দেন বিচারিক আদালত।

বিচারিক আদালতের দেয়া ওই সাজা থেকে খালাস চেয়ে খালেদা ও অন্য দুই আসামি কাজী সলিমুল হক ও শরফুদ্দিন আহমেদ আপিল করেছিলেন হাইকোর্টে।

অন্যদিকে, খালেদা জিয়ার দণ্ড বাড়ানোর আবেদন করেছিল দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। আর নিম্ন আদালতের দেয়া সাজা বহালের আবেদন করেছিল রাষ্ট্রপক্ষ।

ওইসব আবেদনের বিষয় নিষ্পত্তি করে আজ মঙ্গলবার বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মুস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এই রায় দেন।

বিচারিক আদালতের ওই রায়ের পর থেকেই কারাগারে আছেন সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া।

আদালতে দুদকের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন খুরশীদ আলম খান। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন আটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। তবে খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা রায় ঘোষণার সময় আদালতে উপস্থিত ছিলেন না।

বেঞ্চের আজকের কার্যতালিকায় মামলাটি এক নম্বরে রাখা ছিল। রায়কে ঘিরে আদালত কক্ষের আশপাশে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর উল্লেখযোগ্য সংখ্যক সদস্য অবস্থান নিয়েছিল।

Top