আপডেটঃ
অস্ট্রেলিয়াকে বিপক্ষে রেকর্ড জয় পাকিস্তানেরসৌদি আরব থেকে দেশের পথে প্রধানমন্ত্রীঐক্যফ্রন্টের স্থগিত সমাবেশ প্রসঙ্গে মুখ খুললেন কাদের‘ঘ’ ইউনিটের ফল নিয়ে বিভ্রান্তি নেই : ঢাবি উপাচার্যযে কারণে বহিষ্কৃত হলেন বি. চৌধুরী-মান্নান-মাহীমহা-সংকটে সৌদি রাজতন্ত্র, রক্ষা মিলবে কী?সেঞ্চুরি সব সময়ই স্পেশাল: সৌম্যআইয়ুব বাচ্চুর দ্বিতীয় জানাজা অনুষ্ঠিতপ্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হল শারদীয় দুর্গাপূজাগর্জনিয়ায় সন্ত্রাসী কয়দায় নিরহ এক যুবক কে পেটালো প্রতিপক্ষকর্ণফুলীর জুলধায় পূজা মন্ডপ পরিদর্শনে আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দউন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে আবারো নৌকায় ভোট দিনবর্ণাঢ্য আয়োজনে জাতির পিতার কনিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেলের ৫৪তম জন্মবার্ষিকী উদযাপনওয়াশিংটনের ‘বার্তা’ কাদেরকে জানালেন বার্নিকাটনভেম্বরের প্রথম সপ্তাহে সংসদ নির্বাচনের তফসিল

হৃদয় জেতা ক্রোয়েশিয়া আজ ট্রফিও জিতুক!

Crosia.jpeg

ওয়ান নিউজ ক্রীড়া ডেক্সঃ আর্জেন্টিনার সঙ্গে একটা বেশ ভালো মিল ছিলো ক্রোয়েশিয়ার। তবে সেটা শুধু বিশ্বকাপ শুরুর আগে। বিশ্বকাপ শুরুর পর সেই সখ্যতা আর রইলো না!

বাছাই পর্বের শেষ ম্যাচে না জিতলে আর্জেন্টিনার এবারের বিশ্বকাপেই খেলা যে খেলা হয় না। প্রায় ঠিক একই শঙ্কায় ছিলো ক্রোয়েশিয়াও। তবে আর্জেন্টিনার মতো ক্রোয়েশিয়াও শেষ অবধি সেই সমস্যা কাটিয়ে উঠেছিলো। শেষ ম্যাচে জিতলেও প্লে-অফে গ্রিসের বিপক্ষে খেলতে হয় ক্রোয়েশিয়াকে। সেই পর্যায়ে গ্রিসকে হারিয়ে একেবারে শেষ পর্যায়ে বিশ্বকাপে নাম লেখায় তারা।

আর্জেন্টিনার সঙ্গে এই বিশ্বকাপে ক্রোয়েশিয়ার মিল শুধু এটুকুই। বাকি সবকিছুতেই ভীষণ অমিল আর অমিল! আর্জেন্টিনা ঠেলেঠুলে বিশ্বকাপে উঠে এলেও নাম এবং মেসির ভারে ফেবারিটের মর্যাদা পেয়ে যায়। আর ‘ডি’ বা ডেথ গ্রুপে নাইজেরিয়া ও আর্জেন্টিনা থাকায় সবাই ধরেই নেয় যে রাশিয়া বিশ্বকাপে ক্রোয়েশিয়ার পথচলা শেষ হচ্ছে প্রথম রাউন্ডেই! এই গ্রুপ থেকে সম্ভাব্য চ্যাম্পিয়ন হিসেবে সবাই আর্জেন্টিনার নামটাই ছিল শীর্ষে রাখেন। আর দ্বিতীয় দল হিসেবে নাইজেরিয়া। এবং বিদায়ের তালিকায় ক্রোয়েশিয়া!

কিন্তু সব হিসেব বদলে দিয়ে ক্রোয়েশিয়া গ্রুপের বাকি তিন দলকেই হারিয়ে দেয়। এবং আর্জেন্টিনাকে একেবারে যা তা ভঙ্গিতে হারায় ৩-০! গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েই ক্রোয়েশিয়া উঠে যায় দ্বিতীয় রাউন্ডে। সাফল্যের সেই শুরু। দ্বিতীয় রাউন্ড ও কোয়ার্টার ফাইনালে টাইব্রেকারে জিতে বিশ্বকাপের ইতিহাসে দ্বিতীয়বারের মতো সেমিফাইনালে নাম লেখায়। সেমিতে ইংল্যান্ডকে বিদায় করে প্রথমবারের মতো ফাইনালে ক্রোয়েশিয়া।

/uploads/files/IUwDA6LwXi5JmJjOEIfIGpbAr0Zs9qF2J4KAnFbg.jpeg

অথচ বিশ্বকাপ শুরুর আগে এই দলকে কেউ গোনায় ধরেনি! একেকটা ম্যাচ জিতেছে ক্রোয়েশিয়া আর নতুন প্রতিজ্ঞার স্ফূরণে উদ্বীপ্ত হয়ে পরের ম্যাচে আলো ছড়িয়েছে। তবে গ্রুপ পর্বে আর্জেন্টিনাকে হারানো ম্যাচটাই ক্রোয়েশিয়াকে সবচেয়ে বেশি সাহসী করে তোলে। অনেক দূরের স্বপ্ন দেখায়। মাত্র ২০ বছর আগে বিশ্বকাপে ক্রোয়েশিয়ার অভিষেক। আর নিজেদের পঞ্চম আসরেই আজ ফাইনালে!

বিস্ময়কর উত্থান!

একটু জানিয়ে রাখি এই দলটাই কিন্তু ২০১০ সালের বিশ্বকাপের বাছাই পর্বের বাধা টপকাতে পারেনি। তবে পিছিয়ে পড়া মানে যে থেমে যাওয়া নাÑ হেরে যাওয়া মানেই যে হারিয়ে যাওয়া না; সেই প্রমাণই দিচ্ছে ক্রোয়েশিয়ার আজকের ফাইনালে উঠে আসা।

ক্রোয়েশিয়ার মূল শক্তিটা মাঝমাঠেই। বার্সোলোনার ইভান রাকিটিচ, রিয়াল মাদ্রিদের লুকা মদ্রিচ ও মাতোও কোভাচিচ-এই তিনজনে মিলে পুরো মাঝমাঠ যেভাবে সামাল দিচ্ছেন, গোলের জন্য বল সামনে বাড়াচ্ছেন; সেই কৌশলেই আসছে ক্রোয়েশিয়ার সাফল্য। ডিফেন্স ক্রোয়েশিয়ার খুব একটা শক্তপোক্ত নয়। তবে রক্ষণের সেই দূর্বলতা পুরো ঢেকে দিচ্ছেন গোলপোস্টে একা দাঁড়িয়ে দানিয়েল সুবাসিচ। টাইব্রেকারে গড়ানো দ্বিতীয় রাউন্ড এবং কোয়ার্টার ফাইনালের নায়ক তিনিই। এক বিশ্বকাপে চারটি টাইব্রেকার আটকে দেয়ার নতুন বিশ্বরের্কডটা এখন তার। শুধু কি টাইব্রেকার বা পেনাল্টি শুট নয়; দুরুহ কোণ থেকে উড়ে আসা ফ্রিকিক ঠেকিয়ে দিচ্ছেন দক্ষতার সঙ্গে। সন্দেহ নেই মোনাকোয় খেলা এই ক্রোয়াট গোলকিপার রাশিয়া বিশ্বকাপে গোলপোস্টের নিচে অন্যতম সেরা পারফর্মার।

পোষ্টে সুবাসিচ, মাঝমাঠে মদ্রিচ, রাকিটিক ও কোভাচিচের মাস্তানি এবং ষ্ট্রাইকিং জোনে মারিও মানজুকিচ, আন্তে রেবিচ ও ইভান পেরিসিচের গোলমুখ খোঁজার জোরদার প্রচেষ্টা- ক্রোয়েশিয়াকে এই বিশ্বকাপের বিপদজনক দলের ট্যাগমার্ক এনে দিয়েছে।

/uploads/files/ihDi1fEYfnXnLvHWk7tKWy2elK3TXhPLcRCQSLqV.jpeg

এই বিশ্বকাপে এখন পর্যন্ত ১২টি গোল করেছে ক্রোয়েশিয়া। এই একডজন গোলের মধ্যে একটি এসেছে আত্মঘাতী গোল হিসেবে। বাকি ১১টি গোল করেছেন ৯ জনে মিলে। গোল করার এই শক্তির রসায়নটাই জানান দিচ্ছে ক্রোয়েশিয়া কোনো একজনের ওপর নির্ভর করা দল নয়। যাকে বলে পুরো কমপ্লিট প্যাকেজ- এবারের বিশ্বকাপে ক্রোয়েশিয়া তেমনই দল! পেছনের ছয় ম্যাচে দূরন্ত পারফরমেন্স উপহার দিয়ে ক্রোয়েশিয়া ফুটবল ভক্তদের হৃদয় জিতে নিয়েছে। আজ ট্রফি জিতলে যে সত্যিকার অর্থেই প্যাকেজটা কমপ্লিট হয়!

নিজেদের দিনে এই দলটি যে কোনো প্রতিপক্ষকে ছিঁড়েখুঁড়ে ফেলতে পারে। ক্রোয়েশিয়া জানে সব বিভাগে সার্বিক শক্তির বিচারে ফাইনালে ফ্রান্স তাদের চেয়ে বেশ এগিয়ে। আর তাই ম্যাচে ফ্রান্সকে দুঃশ্চিন্তায় ফেলতে হলে প্রথমেই যা করতে হবে তার নাম- গোল!

লুঝনিকি স্টেডিয়ামে রোববার রাতের ফাইনালে ক্রোয়েশিয়া সেই পরিকল্পনা নিয়েই নামছে। সেই সঙ্গে দূরের একটা পরিকল্পনাও সাজিয়ে রেখেছেন ক্রোয়েশিয়ান কোচ জাতকো দালিচ- অতিরিক্ত সময়, টাইব্রেকার! কারণ আর কিছু নয়-

অভিজ্ঞতা। দ্বিতীয় রাউন্ড ও কোয়ার্টার ফাইনাল টাইব্রেকারে জিতেছে ক্রোয়েশিয়া। সেমিফাইনালও জিতল অতিরিক্ত সময়ের গোলে। লম্বা সময়ের জন্য ম্যাচ টেনে নিয়ে যেতে তো চাইবেই ক্রোয়েশিয়া।

-কি বললেন, পরিশ্রম, পরিশ্রান্ত, ক্লান্তি?
ওসব শব্দই যে নেই ক্রোয়েশিয়ার ফুটবল দলে! আছে শুধু- চ্যালেঞ্জ, প্রতিজ্ঞা এবং জেতার জেদ!

Top