আপডেটঃ
ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেলকে বরখাস্ত করছেন ট্রাম্পঈদগাঁহতে আওয়ামীলীগের জনসভাঃ এমপি কমলের লাখ জনতার শোডাউনচট্টগ্রামে জলসা মার্কেটের ছাদে ২ কিশোরী ধর্ষণ, গ্রেপ্তার ৬যশোরের বেনাপোলে সীমান্তে দুই নাইজেরিয়ান নাগরিক আটক“বিএনপি ক্ষমতার লোভে অন্ধ হয়ে গেছে”ঈদগাঁহর জনসভায় রামু থেকে এমপি কমলের নেতৃত্বে যোগ দেবে লক্ষাধিক জনতাসৈকতে অনুষ্ঠিত হলো জাতীয় উন্নয়ন মেলা কনসার্টকর্ণফুলীতে মা সমাবেশশেখ হাসিনার গুডবুক ও দলীয় হাই কমান্ডের তরুণ তালিকায় যারানজিব আমার রাজনৈতিক বাগানের প্রথম ফুটন্ত ফুল- মেয়র মুজিবুর রহমাননাইক্ষ্যংছ‌ড়ি‌তে ডাকাত আনোয়ার বলি ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন মুক্তগণমাধ্যমের জন্য বড় বাধা হয়ে দাঁড়াবে’শহীদ জাফর মাল্টিডিসিপ্লিনারী একাডেমিক ভবনের উদ্বোধনসরকারি চাকরিতে কোটা বাতিলে প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদনজাতিসংঘ অধিবেশনে যোগ দিতে ঢাকা ছাড়লেন প্রধানমন্ত্রী

নিজের বিয়ে নিজেই ঠেকিয়ে এখন স্বাবলম্বী ভোলার ফারজানা

35151486_656493384695512_7144559968115490816_n.jpg

 

ফারজানা ভোলা সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী। বয়স ১৪। তার বাবা মো: সিরাজ পেশায় একজন রাজমিস্ত্রী। গত বছর ফেব্রুয়ারি মাসে তার মা জোর করে মসজিদের এক ঈমামের সঙ্গে বিয়ে দিতে যাচ্ছিলেন। কিন্তু ফারজানা তা হতে দেয়নি। ফারজানা ছিল কর্ণফুলী কিশোরী ক্লাবের সদস্য। সেখান থেকে বাল্য বিয়ের বিভিন্ন ক্ষতিকর দিক সম্পর্কে জানতে পারে। তারপর সে তা বন্ধ করার উদ্যোগ নেয়। এপ্রসঙ্গে ফারজানা বলে, “আমি জানতাম আমার বিয়ে হলে পড়াশুনা বন্ধ হয়ে যাবে এবং আমার স্বাস্থ্যের ক্ষতি হবে। স্কুলেও এসব বিষয়ে আলোচনা হতো। তাই আমি বিয়ে বন্ধ করার জন্য বাড়ি থেকে পালিয়ে স্কুলে যাই এবং প্রধান শিক্ষককে সব কিছু খুলে বলি।”

এরপর প্রধান শিক্ষক তার বাবা-মার সাথে কথা বলে বিয়ে বন্ধ করতে সক্ষম হন। অন্যদিকে ফারজান যখন প্রধান শিক্ষকের বিয়ে বন্ধের উদ্যোগ নিচ্ছিলেন সেসময় তার মা তা জানতে পেরে রাগ করে তার নানুর(ফারজানার) বাড়িতে চলে যান। পরবর্তীতে কোস্ট ট্রাস্ট’র এর কর্মীদের সহযোগিতায় তার মাকে বুঝিয়ে বাড়িতে ফিরিয়ে আনা হয়। উল্লেখ্য, কোস্ট ট্রাস্ট ইউনিসেফ এর আর্থিক সহায়তায় ভোলার সদর, লালমোহন এবং চরফ্যাশনে বিগত কয়েক বছর যাবৎ বাল্য বিবাহ বন্ধে কাজ করে যাচ্ছে।

ফারজানা চার বোনের মধ্যে সবার বড়। তার বাড়ি ভোলা সদর উপজেলার ধনিয়া ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের কানাইনগর গ্রামে। অভাবের কারণে মূলত তার মা তাকে ১৩ বছর বয়সেই বিয়ে দিচ্ছিলেন। এরপর তার পড়াশোনা অব্যাহত রাখার জন্য গত জুনে ইউনিসেফ এর অর্থায়নে কোস্ট ট্রাস্টের ব্যবস্থাপনায় ‘শিশু সুরক্ষা বৃত্তি’ বাবদ ১৫ হাজার টাকা প্রদান করা হয়। সেই টাকা দিয়ে ফারজানা একটি সেলাইয়ে মেশিন কিনে এবং সে সেলাইয়ের কাজ শিখে। তারপর ধীরে ধীরে সেলায়ের কাজ শুরু করে। একই সাথে তার নিয়মিত স্কুল যাওয়া অব্যাহত থাকে। ফারজানার খোঁজ নিতে সম্প্রতি তার বাড়ি গিয়ে দেখা যায়, দুর্বার গতি চলছে তার সেলাইয়ের কাজ আর মেশিন। সে জানায়, “বর্তমানে আমি মাসে ১৫০০ থেকে ২০০০ হাজার টাকা আয় করছি। সেই অর্থ দিয়ে এখন শুধু আমার নয়, আমার ছোট বোনদের পড়াশোনার খরচও চালাতে সহায়তা করছি।”

ফারজানা জানায়, “আমি চাই কোন কিশোরীর যেন আঠারো বছরের আগে বিয়ে না হয়। বাবা-মায়েরা যেন এই বিষয়টি খেয়াল রাখেন। কারণ বাল্যবিবাহ দেশ ও সমাজের জন্য ক্ষতিকর। একটা পরিবারকে ধ্বংস করে দেয়। তাই আমি চাই আমরা কিশোরীরা সবাই মিলে বাল্যবিবাহ মুক্ত সমাজ গড়তে এবং বড় হয়ে আমি ম্যাজস্ট্রেট হতে চাই।”

নিজের ভুল বুঝতে পেরে ফারজানার মা জান্নাতুল ফেরদৌস বলেন, “আমি আসলে বাল্য বিয়ের কুফল সম্পর্কে জানতাম না। এক রকম বিপদে পড়েই মেয়েকে বিয়ে দিতে চেয়েছিলাম। এখন আমি ভুল বুঝতে পেরেছি। ফারজানাকে পড়ালেখা করিয়ে তার স্বপ্ন পূরণে সহযোগিতা করে যাবো।”

বাল্য বিবাহ বন্ধে কাজ কাজ করে যাচ্ছেন এমন একজন ইউনিয়ন সমন্বয়কারী আনঞ্জুমান আরা বেগম বলেন, “ফারজানার পাশে দাঁড়াতে পেরে আমরা খুব খুশি। এখন সে নিজেই পড়াশোনার খরচ সে নিজেই চালাচ্ছে। পাশাপাশি ক্লাবের অন্য সদস্যদের কাছে সে রোল মডেল হয়ে উঠেছে।”

এদিকে ফারজানার এই সাহসিকতার খবর জানতে পেরে ভোলার উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল মমিন টুলু ফারজানাকে পাঁচ হাজাব টাকা পুরস্কৃত করেন এবং গতকাল চেক হস্তান্তর করেন তিনি। একই সময়ে তিনি তার এলাকায় বাল্য বিবাহ প্রতিরোধে সর্বাত্মক চেষ্টা করবেন বলে অঙ্গিকার করেন।

Top