আপডেটঃ
ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেলকে বরখাস্ত করছেন ট্রাম্পঈদগাঁহতে আওয়ামীলীগের জনসভাঃ এমপি কমলের লাখ জনতার শোডাউনচট্টগ্রামে জলসা মার্কেটের ছাদে ২ কিশোরী ধর্ষণ, গ্রেপ্তার ৬যশোরের বেনাপোলে সীমান্তে দুই নাইজেরিয়ান নাগরিক আটক“বিএনপি ক্ষমতার লোভে অন্ধ হয়ে গেছে”ঈদগাঁহর জনসভায় রামু থেকে এমপি কমলের নেতৃত্বে যোগ দেবে লক্ষাধিক জনতাসৈকতে অনুষ্ঠিত হলো জাতীয় উন্নয়ন মেলা কনসার্টকর্ণফুলীতে মা সমাবেশশেখ হাসিনার গুডবুক ও দলীয় হাই কমান্ডের তরুণ তালিকায় যারানজিব আমার রাজনৈতিক বাগানের প্রথম ফুটন্ত ফুল- মেয়র মুজিবুর রহমাননাইক্ষ্যংছ‌ড়ি‌তে ডাকাত আনোয়ার বলি ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন মুক্তগণমাধ্যমের জন্য বড় বাধা হয়ে দাঁড়াবে’শহীদ জাফর মাল্টিডিসিপ্লিনারী একাডেমিক ভবনের উদ্বোধনসরকারি চাকরিতে কোটা বাতিলে প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদনজাতিসংঘ অধিবেশনে যোগ দিতে ঢাকা ছাড়লেন প্রধানমন্ত্রী

জাবালে রহমত: ইসলামের অনন্য নিদর্শন

imam-khair.jpg

 

ইমাম খাইর, মক্কা থেকে:
পবিত্র মক্কা নগরীর পথে-প্রান্তরে ইসলামের প্রচুর ঐতিহাসিক নিদর্শন রয়েছে। বিশ্বের নানা প্রান্তের মুসলমানরা সেসব ঐতিহাসিক স্থান ঘুরে বেড়ায়। একে জিয়ারাহ বা পরিদর্শন বলা হয়।
হজ বা ওমরায় এসে জিয়ারাহ করেন না, এমন লোকের সংখ্যা খুব কম।
তবে এসব স্থানে ধর্মীয় রীতি পরিপন্থি কোনো কিছু করতে সৌদি সরকারের পক্ষ থেকে কঠিনভাবে বারণ করা হয়। তারপরও কাউকে কাউকে দেখা যায়, সেখানে অতি আবেগি কর্মকাণ্ড ঘটাতে। আর এসব কাজ বেশিরভাগ করেন, ভারতীয় উপমহাদেশ থেকে আসা হাজিরা।
তেমনি একটি ঐতিহাসিক স্থান জাবালে রহমত বা রহমতের পাহাড়। মক্কার পূর্ব দিকে মসজিদে হারাম থেকে প্রায় ৯ কিলোমিটার দূরে এর অবস্থান।
ইতিহাসে আছে, মানবতার নবী হযরত রাসূলুল্লাহ(সা.) এখানে দাঁড়িয়ে বিদায় হজের ভাষণ দিয়েছিলেন। পাহাড়টি গ্রানাইড পাথরে গঠিত। উচ্চতা প্রায় ৭০ মিটার।
এই পাহাড়ের চতুর্দিকে দৈর্ঘ্য-প্রস্থে দুই মাইল সমতল ভূমিকে আরাফাতের ময়দান বলা হয়। অবশ্য আরাফাতের পাহাড়ের মাধ্যমে সমগ্র এলাকাকে বোঝানো হয়। হজের সঙ্গে সংশ্লিষ্টতার কারণে এই স্থান মুসলমানদের কাছে খুব গুরুত্বপূর্ণ।
আরাফাতের ময়দানের তিন দিক পাহাড়বেষ্টিত। ময়দানের দক্ষিণ পাশ ঘেঁষে মক্কা হাদা তায়েফ রিং রোড। এই সড়কের দক্ষিণ পাশে আবেদি উপত্যকায় মক্কার উম্মুল কুরা বিশ্ববিদ্যালয় অবস্থিত। উত্তরে সাদ পাহাড়।
সেখান থেকে আরাফাত সীমান্ত পশ্চিমে প্রায় এক কিলোমিটার। সেখান থেকে দক্ষিণে মসজিদে নামিরায় গিয়ে আরাফাত সীমান্ত শেষ হয়েছে।
জাবাল আরবী শব্দ। এর মানে পাহাড়। জাবালে রহমত হলো- রহমতের পাহাড়। এই পাহাড়ের ওপর একটি উঁচু পিলার আছে। একে কেউ কেউ দোয়ার পাহাড়ও বলেন। এছাড়া আরও বেশ কিছু নাম রয়েছে পাহাড়টির। ওপরের পিলারের কাছে যাওয়ার জন্য পাহাড়ের গায়ে সিঁড়ি আছে। পাথরের সিড়িগুলো বেশ প্রশস্ত।
পাহাড়ের ওপরটা মোটামুটি সমতল। পাথরগুলো অনেক বড়। দেখতে খুবই চমৎকার।
পাহাড়ে উঠে কী করা যাবে, আর কী করা যাবে না, তা পাহাড়ের ওপরের পিলারে লেখা আছে। নির্দেশনায় কয়েকটি ভাষার মাঝে বাংলা ভাষাও ব্যবহার করা হয়েছে।
সৌদি সরকারের নিয়োজিত পুলিশ দর্শনার্থীদের এসব মনে করিয়ে দিতে সদা তৎপর।
যেমন বলা আছে, আপনি এই স্তম্ভের দিকে ফিরে নামাজ পড়বেন না, দোয়া করবেন না, পিলার ধরে চুমু খাওয়া যাবে না। নামাজ পড়তে হলে কিংবা দোয়া করতে হলে একমাত্র কাবার দিকে ফিরে নামাজ পড়তে হবে। ইত্যাদি।
পাহাড়ের গায়ে আরবী, ইংরেজি, উর্দু ও বাংলায় অনেক কিছু লিখে রেখেছে দর্শণার্থীরা। অনুভূতিভরা এসব লিখা দেখে মন জুড়িয়ে যায়।
পাহাড়ের পাদদেশে একটি সাইনবোর্ডে বিভিন্ন ভাষায় পাহাড়ের নাম লেখা আছে।
তন্মধ্যে বাংলা ভাষায় লেখা আছে- রহমতের পাহাড়। প্রচুর পাকিস্তানিকে দেখা গেলো- তসবিহ, আংটি, কলম ইত্যাদির পাসরা সাজিয়ে বসে আছেন। বোরকাবৃত কিছু নারী ‘সাদাকা লিল্লাহি’ বলে ভিক্ষা চাইছেন, আর বাচ্চারা চাইছে, ‘ইয়াল্লা বাবা হাজি’ বলে। লোকজন দানও করছে প্রচুর।
বলা হয়, জাবালে রহমতের এই স্থানে হযরত আদম (আ.) ও হযরত হাওয়া (আ.)-এর সাক্ষাত হয়েছিলো। কিন্তু এর পক্ষে কোনো শক্তিশালী প্রমাণাদি মেলে না। আরাফাতের ময়দানে আদম-হাওয়ার সাক্ষাতস্থল হিসেবে কোনো স্থান নির্ধারিত নেই এবং এমন কোনো বিষয় প্রমাণিতও নয়।
তবে হ্যাঁ, আরাফাতের ময়দানে জাবালে রহমতের পাহাড়ে স্থাপিত সাদা রংয়ের ছোট পিলারটি জাবালে রহমতকে চিহ্নিত করার জন্য স্থাপিত। যেহেতু আরাফাতে সবদিকেই পাহাড়, এর মধ্যে কোন পাহাড়টা জাবালে রহমত, যার পাদদেশে হযরত রাসূলে কারিম (সা.) বিদায় হজের খুতবা দিয়েছিলেন, তা যেন লোকেরা সহজে চিনতে পারেন এজন্য এই চিহ্ন সেখানে স্থাপন করা হয়েছে।
লক্ষাধিক সাহাবির উপস্থিতিতে বিদায় হজের ভাষণ হযরত রাসূলুল্লাহ (সা.) কসওয়া নামক উটে আরোহণ অবস্থায় দিযেছিলেন। ওই উটের পীঠে অবস্থানকালীন সময় কোরআনের আয়াত নাজিল হয়, ‘আজ তোমাদের দ্বীনকে পরিপূর্ণ করে দিলাম এবং আমার নিয়ামতকে তোমাদের ওপর যথেষ্ট করে দিলাম, আর আমি ইসলাম ধর্মের ওপর সন্তুষ্ট।’
আলহামদুলিল্লাহ। সুম্মা আলহামদুলিল্লাহ।


আজ ২৯ মে সেহেরী শেষে আমরা কয়েক বন্ধু রহমতের পাহাড়ে হাজির হয়ে রহমতের মালিকের দরবারে হাত তুললাম।
দোয়া করলাম নিজের জন্য, স্বজনের জন্য সর্বোপরি দেশের জন্য। দুই রাকাত শুকরিয়ার নামাজ শেষে জামাতের সাথে ফজর নামাজ আদায় করলাম।
নিজেকে ভাগ্যবান মনে করছি এই ঐতিহাসিক নিদর্শন দেখে। আল্লাহ আমাদের সকলের ওপর রহমত বর্ষণ করুক। আমিন।

Top