আপডেটঃ
কক্সবাজার-রামুর উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে নৌকাকে জয়ী করুন-এমপি কমলঘুষের টাকা সহ চমেক এর কর্মচারীকে হাতেনাতে আটক করেছে দুদক৭নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী জামশেদ’র মনোনয়নপত্র জমাঢাকায় ইয়াবার চালান নিয়ে উখিয়া কলেজের ছাত্রসহ গ্রেফতার ৪সিইসির সঙ্গে বৈঠকে বিএনপির প্রতিনিধি দলকর্ণফুলীতে মোটর সাইকেলের বিরুদ্ধে পুলিশী অভিযানচট্টগ্রাম হোটেলে জামায়াত-শিবির সন্দেহে আড়াইশ জন আটকব্রাজিল নাকি আর্জেন্টিনা?সেই জার্মানিই এখন শূন্য থেকে শীর্ষে!রোহিঙ্গাদের দেখতে আসছেন জাতিসংঘ মহাসচিব ও বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্টচকরিয়ায় বড়শি নিয়ে মাছ ধরতে গিয়ে শিশুর মৃত্যুপৌরবাসীর ভালবাসায় সিক্ত নৌকার প্রার্থী মুজিবুর রহমান চেয়ারম্যানকক্সবাজার সদর থানা পুলিশের অভিযানে গ্রেফতার- ১৩কক্সবাজার আন্চলিক পাসপোর্ট অফিসে বদলীল আদেশ অমান্য করে বহাল আছে সত্যব্রত শর্মাচকরিয়ায় বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্কে দর্শনার্থী বাড়তি বিনোদনে যোগ হয়েছে আকর্ষনীয় তিন জোড়া আফ্রিকান জেব্রা

কক্সবাজার বিমানবন্দরে নির্মাণ হচ্ছে বিশ্বমানের প্যাসেঞ্জার ভবন

cox-large-20180529220226.jpg

ডেস্ক নিউজ:

কক্সবাজার বিমানবন্দর আন্তর্জাতিক মানদণ্ডে উন্নীত করার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এ জন্য বিমানবন্দরে একটি আন্তর্জাতিক মানের প্যাসেঞ্জার ভবন নির্মাণ করা হচ্ছে।

নির্মাণ কাজটি বাস্তবায়ন করবে দেশীয় প্রতিষ্ঠান মেসার্স সিআরএফজি-এনডিইজেভি। এতে ব্যয় ধরা হয়েছে ২৭৫ কোটি টাকা। বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব মো. মহিবুল হক স্বাক্ষরিত প্রস্তাবনায় বলা হয়, কক্সবাজার বিমানবন্দর দেশের অভ্যন্তরীণ বিমানবন্দর সমূহের মধ্যে অন্যতম। বর্তমানে এ বিমানবন্দরে প্রতিদিন গড়ে ১০টি যাত্রীবাহী ও চারটি কার্গো বিমান উড্ডয়ন-অবতরণ করে। দেশের পর্যটন শিল্প বিকাশে দেশি-বিদেশি পর্যটকদের যাতায়াত সুবিধায় পর্যটন নগরী কাক্সবাজারের সঙ্গে রাজধানীসহ অন্যান্য শহরের মধ্যে সুপরিসর বিমান চলাচল সুবিধা নিশ্চিত করা দরকার। এ লক্ষ্যে ‘কক্সবাজার বিমানবন্দর উন্নয়ন (১ম পর্যায়)’ শীর্ষক একটি প্রকল্প চলমান রয়েছে। এ প্রকল্পের আওতায় রানওয়ের দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ বর্ধিতকরণ, লাইটিং সিস্টেম ও যন্ত্রাপাতি স্থাপনসহ রানওয়ের সুবিধাদি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের মানদণ্ডে উন্নীত করা হচ্ছে।

প্রস্তাবনায় আরও বলা হয়- কক্সবাজার বিমানবন্দরের সঙ্গে সরাসরি বহির্বিশ্বের যোগাযোগ স্থাপনের লক্ষ্যে একটি আন্তর্জানিত প্যাসেঞ্জার টার্মিনাল ভবন নির্মাণ আবশ্যক। এ লক্ষ্যে বর্ণিত প্রকল্পটি ২৭৫ কোটি টাকা ব্যয়ে বেবিচকের নিজস্ব অর্থায়নে বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেয়া হয়। উন্মুক্ত দরপত্রে অংশগ্রহণ করে সর্বনিম্ন দরদাতা হিসেবে এ প্রকল্পটি বাস্তবায়নের জন্য ঠিকাদার হিসেবে বাংলাদেশি প্রতিষ্ঠান মেসার্স সিআরএফজি-এনডিইজেভিকে নিয়োগ দেয়া যেতে পারে।

Top