আপডেটঃ
বিএনপি নেতা খসরুকে দুদকে তলববুদ্ধিজীবী কবরস্থানে চিরনিদ্রায় গোলাম সারওয়ারঅটল বিহারী বাজপেয়ী আর নেইমুক্তিযোদ্ধা বিন্টু মোহন বড়ুয়া ছিলেন বঙ্গবন্ধুর আদর্শের নিবেদিত প্রাণ সমাজ সেবক- এমপি কমলবহু ব্যবসায়ীকে পথে বসিয়ে দেওয়া সেই প্রতারক ডিবির হাতে গ্রেফতার“১৫ আগস্ট শুধু শোক দিবস নয়। জগত বিখ্যাত মহান নেতার স্মরণে বাঙ্গালীর একটি শোকাহত দিন”-ফারুক চৌধুরী উপজেলা চেয়ারম্যানযৌন হয়রানির অভিযোগ, শীর্ষ চীনা সন্ন্যাসীর পদত্যাগআমরা শঙ্কার মধ্যেই এগিয়ে যাই: সেতুমন্ত্রীনিরপেক্ষ নির্বাচনে সরকারকে বাধ্য করতে হবে : ফখরুলঅশ্রু-শ্রদ্ধায় গোলাম সারওয়ারকে বিদায় জানালেন গ্রামবাসীবঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধাচট্টগ্রামে স্কুলছাত্রী নিখোঁজের ঘটনায় থানা পুলিশ অপারগ হলেও ,সফলতা দেখিয়েছে ডিবি পুলিশহাইকোর্টে জামিন পেলেন চকরিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান জাফর আলমইতালিতে ব্যস্ততম সেতু ধসে বহু হতাহতের শঙ্কাঘরেই তৈরি করুন রঙিন স্যান্ডউইচ

বনবিভাগের জমিতে অবৈধভাবে বিদ্যুতের লাইন নির্মাণকালে শ্রমিক আটক

IMG_20180517_205926-650x361.jpg
মিছবাহ উদ্দিন, ঈদগাঁও:
কক্সবাজার উত্তর বনবিভাগের আওতাধীন ঈদগাও মেহেরঘোনা রেঞ্জের কালির ছড়া বনবিট এলাকায় বনবিভাগের জায়গায় অবৈধভাবে পল্লি বিদ্যুতের খুটি স্থাপন করে লাইন নির্মাণকালে এক শ্রমিককে আটক করেছে বনবিট কর্মকর্তা। ১৭ মে বিকাল সাড়ে পাঁচটার দিকে কালিরছড়া বিটকর্মকর্তা রাজীবের নেতৃত্বে তাকে আটক করা হয়। আটককৃত শ্রমিক টিকাদার রিপনের পরিচালনাধীন সুমন ইলেকট্রিক প্রতিষ্টানের নির্মাণ শ্রমিক মুস্তাফিজ (৩০) বলে জানা যায়।
মেহেরঘোনা রেঞ্জকর্মকর্তা সূত্রে জানা যায়- থলিয়াঘোনা, ধলিরছড়াসহ বিভিন্ন এলাকায় বনবিভাগের জায়গায় পল্লিবিদ্যুৎ লাইন নির্মাণকাজ শুরু করলে কয়েক মাস আগে কক্সবাজার পল্লিবিদ্যুৎ এজিএম বরাবর নোটিশ প্রদান করা হয়েছিল। যেখানে নির্মাণ কাজ বন্ধ করে স্থাপনকৃত খুটি উত্তোলনের জন্য অনুরুধ করা হয়। কিন্তু তারা সেই নিষেধাজ্ঞা তুয়াক্কা না করে দিনে ও রাতের আধারে অবৈধভাবে লাইন নির্মাণকাজ অব্যাহত রাখায় এ শ্রমিককে আটক করা হয়েছে।
মেহেরঘোনা রেঞ্জকর্মকর্তা মামুন মিয়া জানান, এভাবে বনবিভাগের জায়গায় নতুন নতুন বিদ্যুতের লাইন নির্মাণ করতে থাকলে বনবিভাগের বিশাল জায়গা ভূমিদস্যুদের কবলে চলে যাবে তাই এ কাজ বন্ধ করে দিয়ে শ্রমিককে আটক করা হয়েছে। আটককৃত শ্রমিকের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবাস্থা নেওয়া হচ্ছে বলেও জানান তিনি।
এ ব্যাপারে কক্সবাজার পল্লিবিদ্যুৎ জোনাল অফিসের জি এম নূর হোসেন আজম মজুমদার জানান, যে সব লাইন নির্মাণের ব্যপারে নিষেধাজ্ঞা ছিল তা না করার জন্য বলে দেওয়া হয়েছিল কিন্তু ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান তা কেন করছে তা আমার জানা নেই।
ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান পরিচালক এক্সিকিউটিভ ইঞ্জিনিয়ার জসিম উদ্দিন বলেন, বনবিভাগের জায়গায় বিদ্যুৎ লাইন নির্মাণকাজ না করতে আমাদের পক্ষ থেকে নিষেধ ছিল কিন্তু এলাকার লোকজন বনবিভাগকে ম্যানেজ করে ঠিকাদারি প্রতিষ্টানকে দিয়ে এ ধরনের অনেক লাইন নির্মাণ করেছে। এটা ও আমাদের না জানিয়ে নির্মাণকাজ চালাচ্ছিল একই কায়দায়। তদন্তপূর্বক  যেই ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান এভাবে লাইন নির্মাণকাজ করছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
Top