আপডেটঃ
যে দানে চরম শত্রু থেকে বন্ধু হলেন প্রিয়নবিআসছে শতাব্দীর দীর্ঘতম চন্দ্রগ্রহণ!ঈদে সাত পর্বের নাটকে ঊর্মিলাবাংলাদেশের যে কোনো সংকটে পাশে থাকবে ভারতহৃদয় জেতা ক্রোয়েশিয়া আজ ট্রফিও জিতুক!কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের বহুতল অফিস ভবনের নির্মাণ কাজের শুভ উদ্বোধনচট্টগ্রাম পানির ট্যাংক থেকে মা-মেয়ের লাশ উদ্ধারআওয়ামীলীগের প্রার্থী তালিকা প্রায় চূড়ান্ত, ৮৫টি সংসদীয় আসনে আসছে নতুন মুখবহিষ্কৃত এএসআই ইয়াবা সহ ডিবির হাতে গ্রেফতার:চট্টগ্রাম শাহ আমানত মার্কেটে আগুনক্ষমতা চিরস্থায়ী করার পাঁয়তারা করছে সরকার: ফখরুলভিসির বাসভবনে হামলাকারীদের গ্রেফতার করা হচ্ছে, মুক্তিযোদ্ধা কোটা থাকবে: প্রধানমন্ত্রীকার্ডের লেনদেনে আসছে ‘এনএফসি’ প্রযুক্তিফাইনালে ‘ফ্রান্সের বিপক্ষে প্রস্তুত ক্রোয়েশিয়াগ্রামীণ গল্পে প্রসূন

ঈদগড়ে শিশু বলৎকারের ও হত্যার চেষ্টাকালে  চাচা আটক

received_429336604184415.png

 

মাসেদুল হক আরমান রামু,

কক্সবাজারের রামু  উপজেলার ঈদগড়ে মুহাম্মদুল হাসান মিসবা ( ৮) নামের এক শিশুকে বলৎকারের চেষ্টা ও হত্যার অভিযোগে তার চাচাকে আটক করেছে পুলিশ।

শুক্রবার বেলা ১২ টায় কক্সবাজার সদর উপজেলার ঈদগাঁওয়ের কানিয়ারছড়ার পাহাড়ী এলাকা থেকে নুরুজ্জমা (২০) কে ধরে পুলিশে সোপর্দ করেছে জনতা।

নিহত শিশু ঈদগড়ের টুঠারবিলের হাবিবুর রহমানের ছেলে। আর ঘাতক একই এলাকার দুদুমিয়ার ছেলে।

এলাকাবাসী সূত্র জানায়, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় অভিযুক্ত নুরুজ্জমা নিহতের মরদেহ কোলে করে হাবিবুর রহমানের বাড়িতে নিয়ে যায়। সেসময় শিশুটি পানিতে পড়ে মারা গেছে বলে প্রচারণা চালায় হত্যার দায়ে অভিযুক্ত যুবক। পরদিন বুধবার ওই শিশুকে পারিবারিকভাবে দাফন করা হয়।

নিহতের বাবা হাবিবুর রহমান জানান, আমার ছেলের হত্যাকারী সম্পর্কে আমার  চাচাত ভাই । তাই ঘাতকের কথা বিশ্বাস করে আমার শিশু পানিতে পড়ে মারা গেছে মনে করে পারিবারিকভাবে দাফন করি। কিন্তু দাফনের পর আমার ছেলের সমবয়সীরা আমাকে ও এলাকাবাসীকে জানায়, মঙ্গলবার দুপুরে ঘাতক নুরুজ্জমা আমার ছেলেকে ধরে নিয়ে গিয়ে  তাকে বলৎকারের চেষ্টা করে । কিন্তু আমার ছেলে বাধা দেওয়ায় তাকে হত্যা করে ডোবাতে ফেলে দেয়। পরে সন্ধ্যায় মৃতদেহ পানি থেকে তুলে আবার আমার বাড়িতে নিয়ে আসে।

তিনি আরো বলেন, শিশুদের এমন কথা শোনার পর এলাকাবাসী সহ আমি ঘাতকের বাড়ি যাই। কিন্তু সে তখন বাড়িতে ছিল না। তখন আমার সন্দেহ আরো দৃঢ হয় । পরে শুক্রবার তাকে গহীন জঙ্গল থেকে আটক করে এলাকাবাসী  এরপর পুলিশে সোপর্দ করি।

রামু থানার ওসি লিয়াকত আলী সিকদার  জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে  আটক  নুরুজ্জমা শিশুটিকে বলৎকারের চেষ্টা ও হত্যার কথা স্বীকার করেছে। এঘটনায় নিহতের বাবা বাদী হয়ে  রামু থানায় একটি মামলা দ্বায়ের করেছে।

তিনি আরো বলেন,  আটককে আদালতে পাঠানোর পাশাপাশি নিহতের মৃতদেহ উত্তোলনের আবেদন করা হবে।  আদালতের আদেশ পেলে ম্যাজিষ্ট্রেটের উপস্থিতিতে লাশ উত্তোলন করে ময়নাতদন্ত করা হবে। ঈদগড়ে দায়িত্বরত রামু থানা এ এস আই মোর্শেদ আলম জানান,ঘটনাটি খুবই মর্মান্তিক। এছাড়া বিষয়টি শুনার পর এলাকাবাসীর সহযোগীতায় ঘাতককে আটক করতে সক্ষম হই

। এ রির্পোট লিখা কালীন সময়ে ঘাতক নুরুজ্জমা রামু থানায় রয়েছে বলে পুলিশ জানান।

Top