আপডেটঃ
সৌদি কনস্যুলেট খাসোগিকে খুঁজবেন তুর্কি তদন্তকারীরালালন শাহের ১২৮ তম তিরোধান দিবসপর্যটক ও পূণ্যার্থীদের দুর্ভোগ… রামু চাবাগান- উত্তর মিঠাছড়ি সড়কে অসংখ্য গর্ত ॥ সংস্কার জরুরীচট্টগ্রামে ঝুঁকিপূর্ণ ১৩টি পাহাড়ে অবৈধ বসবাসকারীকে সরানো যাচ্ছেনাকর্ণফুলীতে চলছেনা গাড়ি: আরাকান মহাসড়কে ধর্মঘটফেসবুকে নায়িকা সানাই এর ২৭৮টি ভুয়া অ্যাকাউন্ট,থানায় জিডিসেন্টমার্টিনে রাত্রিকালীন নিষেধাজ্ঞা: পর্যটন খাতে নেতিবাচক প্রভাবের আশঙ্কাআশা ইউনিভার্সিটিতে সুচিন্তা’র জঙ্গিবাদবিরোধী সেমিনারশাহপরীরদ্বীপে ক্ষতিগ্রস্ত ৩৪ পরিবার পেল নগদ টাকাসহ ৩০ কেজি করে চালবেনাপোল কাস্টমসে ১কেজি ৭শ গুড়ো সোনা সহ আটক ১এবার ইতালিতে পুরস্কৃত তৌকীরের ‘হালদা’বাংলাদেশের নিপীড়িত সাংবাদিকদের পক্ষে যুক্তরাজ্যবাংলাদেশ এখন পিছিয়ে পড়া প্রতিবেশী নয় : ভারতীয় গণমাধ্যমআখেরি চাহার সোম্বা ৭ নভেম্বরব্রাজিলকে বার্তা দিল আর্জেন্টিনা

রিভার্স সুইং করাতে ট্যাম্পারিং লাগে না

swing.jpg

ওয়ান নিউজ ক্রীড়া ডেক্সঃ কেপ টাউন টেস্টে অস্ট্রেলিয়ার বল ট্যাম্পারিং চেষ্টার ঘটনার পর এক সপ্তাহ হয়ে গেছে। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া (সিএ) জড়িত তিন ক্রিকেটার স্টিভেন স্মিথ, ডেভিড ওয়ার্নার ও ক্যামেরন ব্যানক্রফটকে কঠোর সাজাই দিয়েছে। তারপরও এই ঘটনা নিয়ে আলোচনা কমেনি। সেই ম্যাচে বল ট্যাম্পারিংয়ের চেষ্টা করা হয়েছিল পেসারদের জন্য বলে রিভার্স সুইং আনতে। কিন্তু যাদের হাতে রিভার্স সুইংয়ের জন্ম সেই পাকিস্তানি গ্রেট পেসাররা দাবী করেছেন, এটা পেতে বল ট্যাম্পারিংয়ের প্রয়োজন নেই। এই তালিকায় আছেন সরফরাজ নেওয়াজ, ইমরান খান, ওয়াসিম আকরাম ও ওয়াকার ইউনিস।

বিশ্ব ক্রিকেটে পাকিস্তান উপহার দিয়েছে দারুণ কিছু ফাস্ট বোলার। সুইং বোলার। পেস বোলার। আর সেই বোলারদের উপহার রিভার্স সুইং। এর পথপ্রদর্শক হিসেবে বিবেচনা করা হয় ডানহাতি পেসার সরফরাজ নওয়াজকে। আর এই ৬৯ বছর বয়সী মনে করেন প্রতারণা ছাড়া রিভার্স সুইং পাওয়া যায় না এই ধারণা পুরোপুরি ভুল, ‘রিভার্স সুইং প্রতারণা, এটা বলাটাও হাস্যকর। বল ট্যাম্পারিং না করেও আপনি রিভার্স সুইং করাতে পারবেন।’

সরফরাজ এই শিল্প তুলে দেন উত্তরসূরি ইমরান খানের হাতে। এই বিদ্যায় তিনি গুরুর চেয়ে বেশি সফলতা অর্জন করেছিলেন। কিন্তু তিনি নিজে বোতলের ছিপি ব্যবহার করে বলের একপাশ রুক্ষ করে ট্যাম্পারিং করার কথা স্বীকার করেছেন। তার হাত থেকে রিভার্স সুইংয়ের বিদ্যা ছড়িয়ে যায় দুই পেস বোলিং গ্রেট ওয়াসিম আকরাম ও ওয়াকার ইউনিসের হাতে। নতুন বলে এই দুজনের জুটি ছিল ভীষণ ধ্বংসাত্মক। ১৯৯২ সালের ইংল্যান্ড সফরে দুজনে মিলে গুঁড়িয়ে দিয়েছিলেন স্বাগতিকদের ব্যাটিং লাইন আপ। ইংলিশ মিডিয়া এই দুজনকেও ট্যাম্পারিংয়ের দায়ে অভিযুক্ত করেছিল। ওয়াকার সেইসব স্মৃতি মনে করে বলেন, ‘ওই অভিযোগগুলো খুব কষ্ট দিয়েছিল।’ তার মতেও রিভার্স সুইং বল ট্যাম্পারিং না করেও পাওয়া সম্ভব, ‘অবশ্যই, প্রতারণা না করেও রিভার্স সুইং পাওয়া সম্ভব। এখন তো বেশিরভাগ বোলারই এটা করে এবং উইকেট নিয়ে দলকে জিততে সাহায্য করে।

তবে ওয়াকারকে ২০০০ সালে শ্রীলঙ্কার মাটিতে ত্রিদেশীয় সিরিজে ট্যাম্পারিংয়ের অপরাধে এক ম্যাচ নিষিদ্ধ হতে হয়েছিল, ৫০ শতাংশ ম্যাচ ফি জরিমানাও হয়েছিল। ‘সুলতান অব সুইং’ নামে পরিচিত আকরামকে কখনই এমন কিছুতে অভিযুক্ত হতে হয়নি।

সূত্র : বিরেকর্ডার ডট কম।

Top