আপডেটঃ
জলাবদ্ধতায় চট্টগ্রামে ঈদআর্জেন্টিনা-আইসল্যান্ড ম্যাচ ড্র: মেসির পেনাল্টি মিসমস্কো যেন মেসিদের শহরআবারও তত্ত্বাবধায়ক সরকার গঠনের দাবি বি. চৌধুরীর২-১ গোলে অস্ট্রেলিয়াকে হারালো ফ্রান্সগণভবনে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করলেন প্রধানমন্ত্রীকারাফটক থেকেই ফিরে গেলেন বিএনপির সিনিয়র নেতারাআষাঢ়ে বৃষ্টির দাপট উপেক্ষা করে ঈদ জামায়াতে ঢল নেমেছিল মুসল্লিদের চট্টগ্রামেকারাগারে সেমাই ও পায়েস দিয়ে ঈদ শুরু খালেদার“ডুবে যাওয়ার পর ত্রাণ নিয়ে বাঁচতে চাই না। দ্রুত বাঁধ মেরামতের ব্যবস্থা চাই”ক্লাসিক ম্যাচে রোনালদোর হ্যাটট্রিকচট্টগ্রাম নগরে ১৬৬ স্থানে ঈদের জামাতচাঁদ দেখা গেছে, কাল ঈদউরুগুয়ের অভিজ্ঞতার কাছেই হারল মিসরহাকিমপুর থানার উদ্দ্যেগে দোয়া ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত

রাজা টংকনাথের রাজবাড়ি, ঠাকুরগাঁও

Tongnath-jomidar-bari.jpg

ওয়ান নিউজ ডেক্সঃ ঠাকুরগাঁও জেলা শহর হতে ৫০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত রানীশংকৈল উপজেলা। উপজেলা শহর হতে ১ কিলোমিটার পূর্বে কুলিক নদীর তীরে অবস্থিত এই রাজবাড়িটি। রাজবাড়ির পশ্চিমে সিংহ দরজা। ১৯১৫ সালে রাজা বুদ্ধিনাথ চৌধুরীর পুত্র টংকনাথ চৌধুরী এই বাড়ি নির্মাণ করেন। রাজবাড়ি সংলগ্ন উত্তর পূর্ব কোণে কাচারী বাড়ির পূর্বদিকে দুটি পুকুর রয়েছে। রাজবাড়ির নির্মাণশৈলী কারুকার্যময় নয়নাভিরাম। রাজবাড়ির মেঝে ছিল মার্বেল পাথরের তৈরি।

জমিদারি

রাজা টংকনাথ চৌধুরীর পূর্ব-পুরুষদের কেউ জমিদার ছিলেন না। বর্তমানে রাণীশংকৈল উপজেলা সদর হতে ৭ কিমি পূর্বে কাতিহার নামক জায়গায় গোয়ালা বংশীয় নিঃসন্তান এক জমিদার বাস করতেন। উক্ত জমিদারের মন্দিরে সেবায়েত হিসাবে কাজ করতেন টংকনাথের পিতা বুদ্ধিনাথ। গোয়ালা জমিদার ভারত এর কাশি যাওয়ার সময় তাম্রপাতে দলিল করে যান যে, তিনি ফিরে না এলে মন্দিরের সেবায়েত বুদ্ধিনাথ জমিদারির মালিক হবেন।

গোয়ালা জমিদার ফিরে না আসায় বুদ্ধিনাথ জমিদারির মালিক হন। জমিদার বুদ্ধিনাথের মৃত্যুর পর টংকনাথ জমিদারির দায়িত্বভার গ্রহণ করেন। তৎকালীন ব্রিটিশ সরকারের আস্থা অর্জন করার জন্য মালদুয়ার স্টেট গঠন করেন।

রাজা টংকনাথ চৌধুরীর স্ত্রীর নাম ছিল জয়রামা শংকরী দেবী। তারপর লোক মুখে তার নাম হয় রানীশংকরী দেবী। পরে রানীশংকরী দেবীর নামানুসারে মালদুয়ার স্টেটের নাম হয়ে যায় রানীশংকৈল।

চৌধুরী ও রাজা উপাধি লাভ:
রাজা টংকনাথ চৌধুরী খুব বড় মাপের জমিদার না হলেও তার আভিজাত্যের কমতি ছিল না। ১৯২৫ সালের ১৮ নভেম্বর তৎকালীন বৃটিশ গভর্নর হাউসে টংকনাথ চৌধুরীকে বৃটিশ সরকার চৌধুরী উপাধিতে ভূষিত করেন।

কথিত আছে, টংকনাথের আমন্ত্রণে তৎকালীন বড়লাট এবং দিনাজপুরের মহারাজা গিরিজনাথ রায় রাণীশংকৈলে এলে আমন্ত্রিত অতিথিদের টাকা নোট পুড়িয়ে রীতিমতো রাজকীয় অভ্যর্থনা ও আপ্যায়ন করান এবং পর্যাপ্ত স্বর্ণালংকার উপহার দেন। এর ফলে তৎকালীন বৃটিশ সরকারের কাছ থেকে চৌধুরী উপাধি এবং দিনাজপুরের মহারাজা গিরিজনাথ রায়ের কাছ থেকে রাজা উপাধি পান।

যেভাবে যাবেন:
ঠাকুরগাঁও জেলা শহর হতে ৫০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত রানীশংকৈল উপজেলা। উপজেলা শহর হতে ১ কিলোমিটার পূর্বে কুলিক নদীর তীরে অবস্থিত এই রাজবাড়িটি। ঠাকুরগাঁও জেলা শহর অথবা উপজেলা শহর হতে যেকোনো লোকাল বাহনে করে যেতে পারবেন রাজা টংকনাথের রাজবাড়িতে।

Top