আপডেটঃ
কক্সবাজার ও রামুতে বিভিন্ন মাদ্রাসা পরিদর্শনকালে আল্লামা শাহ আহমদ শফী কওমি শিক্ষার গুরুত্ব অনুধাবন করেই সরকার কওমি সনদের স্বীকৃতি দিয়েছেঢাকা টেস্টে বাংলাদেশের বিশাল জয়কক্সবাজার প্রেসক্লাবের সভাপতি মাহবুবর রহমান সম্পাদক আবু তাহের চৌধুরীচকরিয়া পৌরসভা যুবলীগ নেতা মোঃ বেলাল উদ্দিন ফরহাদের মৃত্যুতে রামু উপজেলা যুবলীগের শোকসোলাতানিয়া কেজি এন্ড নুরানী একাডেমীর পি.এস.সি পরীক্ষার্থীদে বিদায় ও সংবর্ধনা অনুষ্ঠান সম্পন্ন‘জনবিচ্ছিন্ন বিএনপি জামাত জ্বালাও পোড়াও এবং মানুষ হত্যার গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে’ত্রুটি কাটিয়ে পুরোদমে চট্টগ্রামে গ্যাস সরবরাহকর্ণফুলীতে ‘সাঁকো’ সংগঠনের উদ্যোগে পি.এস.সি পরীক্ষার্থীদের ফ্রি কোচিং সেবা ও বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠিতবিমান বন্দর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পি.এস. সি পরিক্ষাথীদের বিদায় সংবর্ধনা৩০ ডিসেম্বরই নির্বাচন: ইসিহাইকোর্টে হাজির হয়ে নিঃশর্ত ক্ষমা চেয়েছেন কক্সবাজারের ডিসি-এসপিউখিয়ার কলেজছাত্রী হত্যাকারী সন্ত্রাসী কবিরের গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধারমাওলানা আনোয়ারের জানাজা ও দাফন সম্পন্ন‘থ্যাঙ্ক ইউ পিএম’ বিজ্ঞাপনের বিষয়ে অভিযোগ পেলে খতিয়ে দেখা হবে: ইসি সচিবনির্বাচন পিছিয়েছেন। আর নয়। একদিনও নয়, একঘণ্টাও নয়।

বান্দরবান জেলা পরিষদ সদস্য নাইক্ষ্যংছড়ি ক্যউচিং চাকের পদত্যাগ

chak-resign.jpg

মোঃ জয়নাল আবেদীন টুক্কু, নাইক্ষৌংছড়ি :

অন্তর্বর্তীকালীন বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদের সদস্য পদ থেকে চাক সম্প্রদায়ের প্রতিনিধি হিসেবে মনোনীত মাষ্টার ক্যউচিং চাক পদত্যাগ করেছেন। জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ক্যশৈহ্লার হাতে তিনি তার পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন।

এখনো শূন্য ওই পদটিতে কাউকে নিয়োগ দেয়া হয়নি। ক্যউচিং চাকের পদত্যাগের বিষয়টি নিশ্চিত করে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ক্যশৈহ্লা বলেছেন, বয়সজনিত শারীরিক সমস্যার কারণে ক্যচিং চাক ঠিকমতো দায়িত্ব পারন করতে পারছিলেন না। স্থানীয়রা তার বিরুদ্ধে দায়িত্ব পালনে ব্যর্থতার অভিযোগ তুলছিল। এসব কারণে তিনি পদত্যাগ করেছেন। তার পদত্যাগপত্রটি গ্রহণ করে মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে বলে জানান তিনি।

বিগত ২৫ মার্চ ২০১৫ প্রথমবারের মতো তিনি বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদের সদস্য হিসেবে নিয়োগপ্রাপ্ত হন এবং দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছিলেন।

চেয়ারম্যানসহ ১৫ সদস্য বিশিষ্ট অন্তর্বর্তীকালীন বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদে ক্যউচিং চাক নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা থেকে চাক সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিত্ব করছিলেন।

স্থানীয় একাধিক সূত্র জানিয়েছে, জেলা পরিষদের ন্যস্ত বিভাগগুলোতে নিয়োগ নিয়ে অনিয়মে জড়িয়ে পড়েছিলেন ক্যচিং চাক। এ নিয়ে চাক সম্প্রদায়ও দুভাবে বিভক্ত হয়ে পড়ে। দায়িত্বে অবহেলা ও অনিয়মের বিষয়গুলো নিয়ে চাক সম্প্রদায়ের লোকজন বান্দরবান জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ক্যশৈহ্লা ও প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর এমপির কাছে অভিযোগ জানান।

Top