আপডেটঃ
চট্টগ্রাম বাঁশখালীতে সন্ত্রাসী হামলা: দোকান ভাংচুর ও মালামাল লুটবেনাপোল হুন্ডির টাকা ফেনসিডিল নারী শিশু সহ পাচারকারী আটককমলকে নৌকা প্রতীকে বিজয়ী করতে দলে দলে দেশে ফিরছে সদর ও রামু উপজেলার প্রবাসীরানির্বাচনের আগে ওয়াজ মাহফিলের অনুমতি না দেয়ার নির্দেশখেতাবপ্রাপ্ত ১০১ মুক্তিযোদ্ধাকে সম্মানী দিলেন প্রধানমন্ত্রীসংসদ নির্বাচন: ‘ক্লিন ইমেজের ক্যান্ডিডেট’ বলতে কী বোঝেন প্রার্থীরা?এক নজরে বিশ্বের সেরা কয়েকটি ভ্রমণ গন্তব্যবিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীদের শেষ দিনের সাক্ষাৎকার শুরুসশস্ত্র বাহিনী দিবস শিখা অনির্বাণে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধাটেকনাফে পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে নিহত ২জিএম রহিমুল্লাহর প্রথম জানাযা সম্পন্ন, শোকাহত জনতার ঢলকক্সবাজারের জয়া চৌধুরী পোলিং এজেন্ট উপ কমিটির সদস্য মনোনীত।। বিভিন্ন মহলের অভিনন্দন।।যশোরে মা-ছেলে, স্বামী-স্ত্রীসহ ৪১ জন ধানের শীষের মনোনয়ন প্রত্যাশীবিএনপির অভিযোগ ঢালাও, নির্দিষ্ট প্রস্তাব পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থাজিএম রহিমুল্লাহর মৃত্যুতে লুৎফুর রহমান কাজলের শোক

সরকার শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের অধিকার খর্ব করছে: এইচআরডব্লিউ

Human-Rights-Watch.jpg

ওয়ান নিউজ ডেক্সঃ বাংলাদেশে বিরোধী দল বিএনপির নেতাকর্মীদের ঢালাওভাবে গ্রেফতার বন্ধ করা উচিত বলে এক বিবৃতি প্রকাশ করেছে মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস ওয়াচ। বৃহস্পতিবার বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়ার রায়ের আগে সারা দেশে শত শত বিএনপি নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়।

হিউম্যান রাইটস ওয়াচের মতে বাংলাদেশের নিরাপত্তা রক্ষাকারী বাহিনীকে আন্তর্জাতিক আইন অনুসারে আইনশৃঙ্খলা রক্ষা কার্যক্রম চালানোর নির্দেশ দেয়া উচিত বাংলাদেশের সরকারের।

হিউম্যান রাইটস ওয়াচ এশিয়ার পরিচালক ব্র্যাড অ্যাডামস এক বিবৃতিতে বলেন বিরোধী দলকে আন্দোলনে বাধা দিয়ে মতপ্রকাশ ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের অধিকার খর্ব করছে বাংলাদেশ সরকার। বিবিসি বাংলার।

তিনি আরো বলেন, সব রাজনৈতিক দলের নেতাদেরই তাদের সমর্থকদের সহিংসতায় না জড়াতে সতর্ক করা উচিত। একইসাথে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকেও ধৈর্যশীল থাকা উচিত বলে মনে করেন তিনি।

রায়কে কেন্দ্র করে বিএনপি সমর্থকরা বিক্ষোভ করতে পারে এমন আশঙ্কায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয় সারা দেশে। সব ধরনের সভা সমাবেশ নিষিদ্ধ করা হয়েছে ও বিএনপির বেশ কয়েকজন নেতাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

হিউম্যান রাইটস ওয়াচ বলছে, এর আগে বিরোধী দলের আন্দোলনের সময় অগ্নিকাণ্ড, হত্যাকাণ্ড বন্ধ করতে বাংলাদেশের নিরাপত্তা রক্ষাকারী বাহিনী বিরোধী দলের সমর্থকদের গ্রেফতার ও হয়রানি করে। শতাধিক ব্যক্তিকে গুম করারও অভিযোগ আনা হয় নিরাপত্তা রক্ষাকারী বাহিনীর বিরুদ্ধে।

৭ ফেব্রুয়ারি ঢাকায় এক সংবাদ সম্মেলনে খালেদা জিয়া সরকারের বিরুদ্ধে তাকে ও তার পরিবারকে হয়রানির অভিযোগ করেন। তবে দলের সমর্থকদের শান্তিপূর্ণভাবে আন্দোলন করার নির্দেশ দেন তিনি।

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ প্রশাসনিক নির্দেশের মাধ্যমে বিরোধী দলের প্রতিবাদের অধিকার হরণ করছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি। মানবাধিকার সংস্থা আইন ও সালিশ কেন্দ্র জানিয়েছে, গত আট দিনে সারা দেশে ১৭৮৬ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। রায়কে কেন্দ্র করে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও বিএনপির সমর্থকরা সহিংসতা ছড়াতে পারে বলে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে হিউম্যান রাইটস ওয়াচ।

শক্তি ও আগ্নেয়াস্ত্রের ব্যবহারে জাতিসংঘের মৌলিক আইন মেনে চলার জন্য নিরাপত্তা রক্ষাকারী বাহিনীকে সুষ্ঠু নির্দেশনা দেয়ার জন্য বাংলাদেশের সরকারকে আহ্বান জানানো হয়েছে হিউম্যান রাইটস ওয়াচের পক্ষ থেকে।

Top