আপডেটঃ
কমলকে নৌকা প্রতীকে বিজয়ী করতে দলে দলে দেশে ফিরছে সদর ও রামু উপজেলার প্রবাসীরানির্বাচনের আগে ওয়াজ মাহফিলের অনুমতি না দেয়ার নির্দেশখেতাবপ্রাপ্ত ১০১ মুক্তিযোদ্ধাকে সম্মানী দিলেন প্রধানমন্ত্রীসংসদ নির্বাচন: ‘ক্লিন ইমেজের ক্যান্ডিডেট’ বলতে কী বোঝেন প্রার্থীরা?এক নজরে বিশ্বের সেরা কয়েকটি ভ্রমণ গন্তব্যবিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীদের শেষ দিনের সাক্ষাৎকার শুরুসশস্ত্র বাহিনী দিবস শিখা অনির্বাণে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধাটেকনাফে পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে নিহত ২জিএম রহিমুল্লাহর প্রথম জানাযা সম্পন্ন, শোকাহত জনতার ঢলকক্সবাজারের জয়া চৌধুরী পোলিং এজেন্ট উপ কমিটির সদস্য মনোনীত।। বিভিন্ন মহলের অভিনন্দন।।যশোরে মা-ছেলে, স্বামী-স্ত্রীসহ ৪১ জন ধানের শীষের মনোনয়ন প্রত্যাশীবিএনপির অভিযোগ ঢালাও, নির্দিষ্ট প্রস্তাব পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থাজিএম রহিমুল্লাহর মৃত্যুতে লুৎফুর রহমান কাজলের শোকরফিকুল ইসলাম মিয়া গ্রেফতারশেষ চেষ্টা ৩০ ডিসেম্বর: ফখরুল

নাইক্ষ্যংছড়িতে ৪ জন অপহরনঃ মুক্তিপন দাবী

FB_IMG_1516453929906.jpg

 

হাবিবুর রহমান সোহেল, নাইক্ষ্যংছড়ি।

বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার দোছড়ি ইউনিয়নের লংগদুর মুখ এলাকা থেকে সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে চার তামাক চাষীকে অপহরণ করে নিয়ে যায়। এবং মোটা অংকের মুক্তি পন দাবীর খবর পাওয়া গেছে। ২০ জানুয়ারি শনিবার ভোররাত ৪টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। অপহৃতরা হলেন, রামু উপজেলার গর্জনিয়া ইউনিয়নের থোয়াঙ্গাকাটা গ্রামের বাসিন্দা নুরুল আলমের পুত্র আব্দুল আজিজ (১৬), একই গ্রামের বাসিন্দা আবদু রহমানের পুত্র আব্দুর রহিম (২৫), থিমছড়ি গ্রামের বাসিন্দা রদিশ আহামদের পুত্র শাহ আলম (৪০), অপরজন দোছড়ি ইউনিয়নের বাসিন্দা মৃত আলী মদনের পুত্র আবু সৈয়দ (৪২)। স্থানীয়রা জানান, জেলার নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার দোছড়ি ইউনিয়নের লংগদুর মুখ এলাকার একটি খামার বাড়ি থেকে ১০/১২জন সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা অস্ত্রের মুখে এ ৪ তামাক চাষীকে অপহরণ করে নিয়ে গেছে। পরে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। অপহৃতদের উদ্ধারে আশপাশের পাহাড়ী এলাকাগুলোতে অভিযান চালাচ্ছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

এছাড়া উপজেলার বাইশারী ইউনিয়নের থ্রি স্টার রাবার বাগানেও সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা হামলা চালিয়ে বাগান পাহারাদার আব্দু শুক্কুরকে মারধর ও রক্ষিত মালামাল নিয়ে যায় বলে জানান বাগানের সুপার ভাইজার মোঃ ইউনুছ।

অপহৃত আব্দুল আজিজের পিতা নুরুল আলম জানান, তার ছেলেকে অপহরণের বিষয়টি তিনি স্থানীয় বাসিন্দাদের কাছ থেকে শুনেছেন। তবে এ পর্যন্ত কোন ধরনের মুক্তিপনও ছেলের বিষয়ে খোঁজখবর পাওয়া যায়নি।

উল্লেখ্য গত কয়েক মাস আগেও দোছড়ি ইউনিয়নের ছাগল খাইয়া এলাকা থেকে তিন কৃষককে অপহরণ করেছিল। দীর্ঘ ৯দিন পর মুক্তিপনের বিনিময়ে তারা উদ্ধার হয়েছিল। এছাড়া বিগত দিনে বাঁকখালী, দোছড়ি, ছাগল খাইয়া এলাকা থেকে কমপক্ষে ২০ জনের অধিক লোকজনকে সন্ত্রাসীরা অপহরণ করেছিল। সকলেই মুক্তিপনের বিনিময়ে উদ্ধার হয়েছে বলে অপহৃতরা জানান।

এ বিষয়ে দোছড়ি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো: হাবিবুল্লাহ বলেন, তামাক চাষী ৪জনকে খামার বাড়ী থেকে অস্ত্রের মুখে অপহরণ করে নিয়ে যাবার সংবাদ শুনেছি । ওরা সবাই তামাক চাষ করতে লংগদুর মুখ এলাকায় এসেছিল।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে নাইক্ষ্যংছড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ আলমগীর জানান, তামাক চাষী ৪জনকে অপহরণের খবর পেয়েছি। তাদেরকে উদ্ধারের জন্য ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।

Top