আপডেটঃ
শার্শায় মাদক মামলার আসামী বাপ্পী অস্ত্র সহ আটকমহেশখালিতে দুই গ্রুপের বন্দুকযুদ্ধ মাদক ব্যবসায়ি নিহতকক্সবাজারে বন্দুকযুদ্ধ শুরু,নিহত মাদক কারবারি হাসানতাসপিয়া হত্যায় অপর আসামী গ্রেফতারনতুন নেতৃত্ব সৃষ্টির লক্ষ্যে দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের ৬ কমিটি বিলুপ্তযশোরে উত্যক্তের প্রতিবাদ করায় ছুরিকাঘাত : আহত নারীর মৃত্যুবেনাপোল দিয়ে আট দিনে দশ হাজার টন পেঁয়াজ আমদানিক্রসফায়ারে ভীত নই : বদিইউএস-বাংলায় চাকরিবাংলাদেশ ব্যাংকে অফিসার পদে পরীক্ষা শুক্রবার‘আর্জেন্টিনাই এবার বিশ্বকাপ জিতবে’চট্টগ্রাম রেঞ্জের সেরা ওসির পুরস্কার পেলেন রনজিত বড়ুয়ারোজায় খেজুর কেন খাবেন?নিজ গ্রামে চিরনিদ্রায় শায়িত মুক্তামণিবাবার কবরে শায়িত তাজিন আহমেদ

বোর্ডের কথা না মানায় দক্ষিণ আফ্রিকায় ভারতের এই দশা!

South-Afrika-1.jpg

ওয়ান নিউজ ক্রীড়া ডেক্সঃ দেশের মাটিতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দীর্ঘ এক সিরিজের পর পরই দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে গিয়েছে ভারত। ৫ জানুয়ারি কেপ টাউনে প্রথম টেস্টে নামার আগে দলটি দক্ষিণ আফ্রিকায় কোন ওয়ার্ম আপ বা প্রস্তুতি ম্যাচ খেলেনি। আর কেপ টাউন টেস্টে হারের পর এ বিষয়টাই এখন আলোচনায় উঠে এসেছে। ভারতের হার নিয়ে চলছে তুমুল আলোচনা, চলছে চুলচেরা বিশ্লেষণ। কথা উঠেছে, দক্ষিণ আফ্রিকার চরম গতি ও বাউন্সি উইকেটে মানিয়ে নিতে পারেননি ভারতীয় ব্যাটসম্যানরা। এদিকে ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ড বিসিসিআই জানিয়েছে, তারা কয়েকজন টেস্ট স্পেশালিস্ট ক্রিকেটারকে আগেই দক্ষিণ আফ্রিকায় পাঠানোর প্রস্তাব দিয়েছিলো। কিন্তু টিম ম্যানেজমেন্ট তাতে কোন সাড়া দেয়নি।

বিদেশ সফরে দলের আগে পৌঁছানোর সুযোগ পেলে ভারতের সাবেক ক্রিকেটাররা তা লুফে নিতেন। কন্ডিশনের সাথে খাপ খাইয়ে নিতেন। একই সুযোগ থাকা সত্ত্বেও বর্তমান টিম ম্যানেজমেন্ট একসাথে দক্ষিণ আফ্রিকায় পৌঁছেছে।

বিসিসিআই-এর এক কর্মকর্তার বরাত দিয়ে ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস জানিয়েছে, ‘কয়েকজন খেলোয়াড়কে আগেই দক্ষিণ আফ্রিকায় পাঠানোর জন্য ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্টকে প্রস্তাব দিয়েছিলো বিসিসিআই। বিশেষ করে মুরালি বিজয়, চেতেশ্বর পূজারা ও অজিঙ্কা রাহানে মতো খেলোয়াড়দের। বিসিসিআই এর খরচ বহন করতে প্রস্তুত ছিলো। কিন্তু ম্যানেজমেন্ট কোন আগ্রহ দেখায়নি। তারা প্রস্তাবটি ফিরিয়ে দিয়েছিলো।’

সূত্র আরো জানিয়েছে, ‘এমনকি কয়েকজন গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড়কে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষের ওয়ানডে ও টি-টুয়েন্টি লিগ থেকেও বিশ্রাম দিতে চেয়েছিলো বিসিসিআই।’ কারণ, ওই সিরিজ অতোটা গুরুত্বপূর্ণ ছিল না এই বিচারে যে সামনেই কঠিন সফর দক্ষিণ আফ্রিকায়।

সূত্রটি আরো দাবি করেছে, ‘অস্ট্রেলিয়া বা নিউজিল্যান্ড সফরের সময় শচীন টেন্ডলকার, রাহুল দ্রাবিড় ও ভিভিএস লক্ষ্মণের মতো খেলোয়াড়রা দলের আগে চলে যেতেন। সেখানে তারা স্থানীয় দলগুলোর বিপক্ষে খেলে কন্ডিশনের সাথে খাপ খাইয়ে নিতেন। সিরিজের আগে প্রস্তুতি ম্যাচ আয়োজন করতে বিসিসিআইর কোন সমস্যা হতো না। কিন্তু টিম ম্যানেজমেন্টকেই এটা বলতে হয়।’

নিউল্যান্ডসে ২০৮ রানের জয়ের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ১৩৫ রানেই গুটিয়ে যায় ভারত। তার আগে প্রথম ইনিংসেও ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে কোহলির দল। ২০৯ রানে অল আউট হয়েছিল। হার্দিক পান্ডিয়ার বীরোচিত ও আগ্রাসী ৯৩ রানের কল্যাণে সে যাত্রায় কিছুটা মান বেঁচেছিল। কিন্তু প্রথম টেস্টে ব্যাটিং ব্যর্থতায় ৭২ রানে হারের পর দলের প্রস্তুতি নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। কেন একটিও ওয়ার্ম আপ ম্যাচ খেলেনি ভারত- এমন প্রশ্নের জবাবে কোহলি বলেছিলেন, ‘আমাদের খুবই ভালো প্রস্তুতি ছিলো। আমি মনে করি না, প্রস্তুতিতে আমাদের কোন ত্রুটি আছে। এটা এমন একটা উইকেট, যেখানে প্রতিদিনই কিছু না কিছু ঘটেছে। আমরা ব্যাটিং ব্যর্থতার জন্যই হেরেছি, এটা নিশ্চিত।’

Top