আপডেটঃ
সব সদস্য রাষ্ট্র একসঙ্গে কাজ করলে শান্তি নিশ্চিত হয় : স্পিকারনির্বাচন কবে, জানতে চাইলেন মার্কিন কূটনীতিকসভাপতি কমল এমপি, সাধারণ সম্পাদক হুদা বঙ্গবন্ধু পরিষদ কক্সবাজার জেলা কমিটি অনুমোদনযশোরে বন্দুকযুদ্ধে মাদক ব্যবসায়ী নিহতহিলিতে জাতীয় ইদুঁর নিধন অভিযানের উদ্বোধনসৌদি কনস্যুলেট খাসোগিকে খুঁজবেন তুর্কি তদন্তকারীরালালন শাহের ১২৮ তম তিরোধান দিবসপর্যটক ও পূণ্যার্থীদের দুর্ভোগ… রামু চাবাগান- উত্তর মিঠাছড়ি সড়কে অসংখ্য গর্ত ॥ সংস্কার জরুরীচট্টগ্রামে ঝুঁকিপূর্ণ ১৩টি পাহাড়ে অবৈধ বসবাসকারীকে সরানো যাচ্ছেনাকর্ণফুলীতে চলছেনা গাড়ি: আরাকান মহাসড়কে ধর্মঘটফেসবুকে নায়িকা সানাই এর ২৭৮টি ভুয়া অ্যাকাউন্ট,থানায় জিডিসেন্টমার্টিনে রাত্রিকালীন নিষেধাজ্ঞা: পর্যটন খাতে নেতিবাচক প্রভাবের আশঙ্কাআশা ইউনিভার্সিটিতে সুচিন্তা’র জঙ্গিবাদবিরোধী সেমিনারশাহপরীরদ্বীপে ক্ষতিগ্রস্ত ৩৪ পরিবার পেল নগদ টাকাসহ ৩০ কেজি করে চালবেনাপোল কাস্টমসে ১কেজি ৭শ গুড়ো সোনা সহ আটক ১

বন প্রহরীদের দিয়ে চলছে বিট অফিস জনবল সংকটে উত্তর বনবিভাগ কক্সবাজার

Screenshot_2018-01-04-18-32-11-1.png

 

মোঃ নেজাম উদ্দিন, 
বনপ্রহরীদের দিয়ে চলছে কক্সবাজার উত্তর বন বিভাগের বেশ কিছু অফিস,
ঠিক তেমনি বিট কর্মকর্তা রেন্জ কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন করছে এমন  কয়েকটি রেন্জ   অফিসের করুন দশা জানালেন উত্তর বন বিভাগের কক্সবাজার প্রধান  হক মাহবুব মোর্শেদ,তিনি জানান উত্তর বন বিভাগ প্রায় ৩৫ হাজার হেক্টর জায়গা জুড়ে,
এবং এই ৩৫ হাজার হেক্টরে বন বিভাগে রেন্জ অফিস আছে ১০টি তার অধীনে বিট অফিস আছে ২৯টি,  রেন্জ গুলো হচ্ছে
ফাসিয়াখালী রেন্জ,
ফুলছড়ি  রেন্জ,
ঈদগাও রেন্জ,
ঈদগড় রেন্জ,
মেহের ঘোনা রেন্জ
জোয়ারিয়ানালা রেন্জ
বাঘখালী রেন্জ,
পিএম খালী রেন্জ,
চকরিয়া সুন্দরবন  রেন্জ,
ফুলছড়ি রেন্জ এর অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করছে খুটাখালী বিট কর্মকর্তা,
ঈদগাও রেন্জ এ নেই কোন রেন্জ কর্মকর্তা ও
ঈদগড় রেন্জ এ নেই কোন রেন্জ কর্মকর্তা
এবং এই রেন্জে ঈদগড় বিট ও বাইশারী বিটে নেই বিট কর্মকর্তা, বনপ্রহরী দিয়ে অফিস চালাচ্ছেন বলে জানা যায়,
মেহের ঘোনা রেন্জে নেই  রেন্জ কর্মকর্তা ও মেহেরঘোনা বিট, মাছুয়খালী বিট কালিরছড়া বিট, ধলির ছড়া বিট, এর একটিতে  বিট কর্মকর্তা নাই বলে জানা যায়,
বাঘখালী রেন্জে গীলাতলী বিট, ক্চ্ছপিয়া বিটে ও একই দশা বলে জানান,
পিএমখালী রেন্জে নেই রেন্জ কর্মকর্তা,
ও পিএম খালী বিট, তুতুকখালী বিট, খুরুস্কুল বিট,ও চকরিয়া সুন্দরবন রেন্জ অফিস সহ
উজানটিয়া বিটেও বনপ্রহরীদের দিয়ে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে,
এই দশটি রেন্জ অফিসে বর্তমান রেন্জ কর্মকর্তা আছেন ২টিতে বাকি ৮টি রেন্জ এ ভারপ্রাপ্ত হিসাবে বিট কর্মকর্তারা চালিয়ে যাচ্ছে তাও আবার একজন দুইটির দায়িত্ব ও পালন করছে।  মাহবুব মোর্শেদ বলেন ফাসিয়া খালীতে ৫টি বিট অফিস রয়েছে ফাসিয়াখালী সদর বিট, ডুলাহাজারা বিট, নলবিলা বিট কাম চেক পোষ্ট, কাকারা বিট, মানিকপুর বিট কাম চেক ষ্টেশন, ফুলছড়ি রেন্জ এর অধীনে,
বিট অফিস আছে ফুলছড়ি সদর বিট, নাপিতখালী বিট, খুটাখালী বিট,মেধাকচ্ছপিয়া বিট রাজঘাট বিট, এই রেন্জ এ খুটাখালী রেন্জ অফিসার নেই এবং খুটাখালী বিট কর্মকর্তা নেই,  এর স্থলে বিট অফিসারের দায়িত্ব পালন করছে বন প্রহরী ও রেন্জ এর দায়িত্ব পালন করছে বিট কর্মকর্তা, অপরদিকে জানা যায় ১০টি রেন্জ অফিসের মধ্যে ৮টি রেন্জ অফিসের রেন্জ কর্মকর্তা নেই সেগুলো হলো ফুলছড়ি রেন্জ, ঈদগাও রেন্জ, ঈদগড় রেন্জ, মেহেরঘোনা রেন্জ বাঘখালী রেন্জ, পিএমখালী রেন্জ, চকরিয়া সুন্দরবন রেন্জ,   পরিদর্শনে দেখা যায় এই সব রেন্জ অফিস গুলো প্রায় সময় বন্ধ থাকে এবং যারা কর্মকর্তারা আছেন তাদের একাদিক দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে তাদের অফিসের বাইরে থাকতে হয় বেশি
উত্তর বন বিভাগের ২৯টি বিট অফিস থাকলেও  কর্মকর্তা আছে হাতে গুনা কয়েটি অফিসে কক্সবাজার উত্তর বনবিভাগ জানান ২৯টি বিট অফিস এর মধ্যে ১২টি বিট অফিসে কর্মকর্তা নেই এবং ৪ জন  বিট কর্মকর্তা বদলী হয়ে আছে। মাহবুব মোর্শেদ জানান  কক্সবাজার উত্তর বন বিভাগের মোট সরকারী কর্মকর্তা কর্মচারী সংখ্যা থাকার কথা ৩১০ জন কিন্তু এখন কাজ করছে ১৮৫ জন কক্সবাজার অফিস সহ সব বিট অফিস মিলিয়ে।

পরিদর্শন কালে কক্সবাজার উত্তর বন বিভাগ কর্মকর্তা হক মাহবুব মোর্শেদ।

এই ১৮৫জন জনবল নিয়ে ৩৫ হাজার হেক্টর বন কিভাবে বনদস্যুদের হাত থেকে বাঁচাবো!! আমাদের নেই কোন তেমন জনবল ও আধুনিক অস্ত্র, যা আছে তা পুরোনো হয়ে গেছে  ব্যবহার অনুপযোগী,  যার ফলে আমরা  বনদস্যুদের সামনে যেতে বিভিন্ন বাহিনীর সহায়তা নিতে হয়।  যদি বন বিভাগ আলাদা জনবল নিয়ে দক্ষ  ফোর্স তৈরী করে তবে আমরা বন রক্ষায় আরো সফল হবো।  এইনিয়ে পরিবেশবাদীদের সাথে কথা হলে তারা জানান বন রক্ষা করতে বনবিভাগ কে সহায়তা করা জরুরী, এবং তাদের জনবল ও বনদস্যুদের সাথে যেন মোকাবেলা করতে পারে এমন অস্ত্র সরবরাহ করা সরকারে উচিৎ, বন কর্মকর্তা মাহবুব মোর্শেদ আরো জানান। আমরা সর্বাত্বক চেষ্টা করে যাচ্ছি বন, পাহাড় ও সরকারী জায়গা যেন অবৈধ দখলে না যায়  , তার পরও  কিছু হচ্ছে,তাদের আমরা আইনের আওতায় আনবো অপরদিকে বর্তমান ফুলছড়ি রেন্জ দায়িত্বে থাকা আবদুর রাজ্জাকের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে বলে জানা যায়,
নাম প্রকাশে অনিশ্চিুক ব্যক্তি জানান, ঈদগাও পূর্ব বোয়ালখালী এলাকায় মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে পাহাড় কেটে ঘর  করতে দিয়েছে আবদৃর রাজ্জাক, এবং খুটাখালী সহ বিভিন্ন জায়গায় বন বিভাগের জায়গা দখল ও পাহাড় কাটার উৎসাহ  দিচ্ছে এই ভারপ্রাপ্ত রেন্জ কর্মকর্তা,


অভিযোগ করা হলেও কোন কাজের কাজ কিছু হয় না,  সাধারন জনগন মনে করেন বন বিভাগকে যদি পূর্ন জনবল দেওয়া হয় তবে আমাদের বন অনেকাংশে বনদস্যুদের হাত থেকে রক্ষা পাবে,  আশু সমাদান চান এই সব সমস্যার সকলে।

Top