আপডেটঃ
সু-শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে – নোমান হোসেনজনবল সংকট ফুলছড়ি রেন্জ বেপরোয়া বনদস্যুরাখুটাখালীর পীর হাফেজ মাওলানা আবদুল হাই হুজুর আর নেইরামুর অবকাশ কমিউনিটি সেন্টারে ইউএনও’র নেতৃত্বে ভ্রাম্যমান আদালতের  অভিযান ॥ মাদক ও জুয়ার সামগ্রীসহ আটক ৪মোমেন হওয়ার জন্য পরিপূর্ণ ইসলামে প্রবেশ করুনডুলাহাজারা ইসলাম প্রচার ইসলামী তরুণ সংঘের নতুন কমিটি গঠিতনাইক্ষ্যংছড়িতে ৪ জন অপহরনঃ মুক্তিপন দাবীমহেশখালীতে গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যানিজ দেশে ফিরে যেতে রোহিঙ্গাদের ছয় দফা পূরণ করতে হবেনাইক্ষ্যংছড়ি দোছড়িতে চারজন কৃষক অপহরনচুনতির বিভিন্ন স্কুলে ৯৭ ব্যাচ এর উদ্যোগে দরিদ্র শিশুদের মাঝে পোশাক বিতরণঃকর্ণফুলীতে ওয়ারেন্টভূক্ত আসামী গ্রেফতার,ছাড়িয়ে নিতে জোর তদবিরঃশ্রীলঙ্কাকে গুঁড়িয়ে দিল টাইগাররাআন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়ার আহ্বান মির্জা ফখরুলেরবিজয়ের পথে বাংলাদেশ

সৃষ্টির সব জ্ঞানের উৎস আল্লাহ

Islam-quran.jpg

ওয়ান নিউজ ডেক্সঃ ‘ওয়া লা ইউহিতুনা বি-শাইয়িম মিন ইলমিহি ইল্লা বিমাশাআ’ অর্থাৎ আল্লাহ যতটুকু ইচ্ছা করেন তা ব্যতিত মানুষ ও সমগ্র সৃষ্টির জ্ঞান আল্লাহ তাআলার জ্ঞানের কোনো একটি অংশ বিশেষকেও পরিবেষ্টিত করতে পারে না।’ আয়াতুল কুরসির সপ্তম অংশে আল্লাহ তাআলা তাঁর জ্ঞান ও সমগ্র সৃষ্টি জ্ঞানের ব্যাপারে সুস্পষ্ট বক্তব্য পেশ করেছেন।

মানুষসহ সমগ্র সৃষ্টির জ্ঞান সসীম আর আল্লাহ তাআলার জ্ঞানের কোনো পরিসীমা নেই। আল্লাহ তাঁর সৃষ্টিকে যতটুকু জ্ঞান দান করেছেন, এর মধ্যেই সমগ্র সৃষ্টি সীমাবদ্ধ। এ কারণেই আল্লাহ তাআলা ঘোষণা করেন, ‘যা তিনি ইচ্ছা করেন, তা ছাড়া তার জ্ঞানের কোনো কিছুই তারা (মানুষসহ সমগ্র সৃষ্টি) আয়ত্ব করতে পারে না।’

আয়াতের আগের অংশে আল্লাহ তাআলা সমগ্র সৃষ্টির আগরে এবং পরের খবরাখবর জানেন বলে ঘোষণা দিয়েছেন। এ জন্য আল্লাহ তাআলা বলেছেন সৃষ্টির সব বিষয়ে তিনি অবগত আছেন। তা হোক আগের বা পরের।

আলোচ্য আয়াতাংশটিও আয়াতুল কুরসির ১০টি বক্তব্যের সপ্তম বক্তব্য। যা দুনিয়ার মহামণ্ডিত দাবিকারীদের জ্ঞান ও বক্তব্যকে খোঁড়া করে দিয়েছেন। যার বক্তব্যের কাছে সব জ্ঞানীদের দৌরাত্ম বন্ধ হয়ে গেছে।

আলোচ্য আয়াতাংশে আল্লাহ তাআলা সমগ্র বিশ্ববাসীকে তাঁর একচ্ছত্র আধিপত্যের চ্যালেঞ্জ ঘোষণা করেন বলেন, ‘তিনি যতটুকু চান; তা ব্যতিত (মানুষসহ সমগ্র সৃষ্টির) কেউই তাঁর জ্ঞানের কোনো কিছুই আয়ত্ব করতে পারে না। তাঁর জ্ঞানের সীমাকে পরিবেষ্টিত করতে পারে না।

আল্লাহ তাআলা সৃষ্টির যাকে যে পরিমাণ জ্ঞান দান করেন, শুধু ততটুকুই মানুষ আয়ত্ব করতে পারে। এ আয়াতাংশে বলা হয়েছে, সমগ্র সৃষ্টি অণু-পরমাণু পরিমাণ জ্ঞানও আল্লাহর জ্ঞানের আওতাভূক্ত। মানুষ বা অন্য কোনো সৃষ্টি এ জ্ঞানের অংশীদার নয়। (তাফসিরে মারেফুল কুরাআন)

আয়াতাংশটি আল্লাহ তাআলার একটি বিশেষ গুণ। মানুষ বরং সমস্ত মাখলুক আল্লাহর ইলমের কোনো অংশকে আয়ত্বে আনতে পারে না। সমস্ত সৃষ্টিরাজির অণু-পরমাণু পরিমাণ বস্তুতে তাঁর জ্ঞান রয়েছে। এটা আল্লাহর বিশেষ গুণ এবং এতে কেউ শরিক নেই। (তাফসির জালালাইন)

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে আয়াতুল কুরসিতে ঘোষিত গুণগুলোর উপর বিশ্বাস স্থাপন করে শিরকমুক্ত ঈমান লাভের তাওফিক দান করুন। আমিন।

Top