শারীরিক সম্পর্ক স্ত্রীর কাছে অপরাধের শামিল, কি করলেন স্বামী!

Life.jpg

 ওয়ান নিউজ ডেক্স:  যৌনতা নিয়ে খোলামেলা আলোচনা হয়তো অনেক সমস্যার সমাধান করতে পারে৷ কিন্তু একবিংশ শতাব্দীতে দাঁড়িয়ে যৌনতা নিয়ে আজও রক্ষণশীল ভারত৷ তাই ছোটবেলা থেকেই ক্রমাগত চেপে থাকতে থাকতে ভারতীয় নারীদের ভবিষ্যত হয়ে ওঠে চরম কষ্টের৷ শারীরিক সম্পর্ককে একটি চরম অন্যায় বলে মানতে শুরু করেন অনেক নারী৷ এমনই একটি বিষয় নিয়ে সম্প্রতি মুখ খুললেন ভারতীয় এক দম্পতি৷

নিজেদের বিবাহিত জীবনের কথা বলতে গিয়ে ভেঙে পড়েন স্বামী৷ প্রতিটি কথায় কথায় স্ত্রীকে ভালোবেসেও ছেড়ে থাকার যন্ত্রনাটা বেরিয়ে আসছিল তার কথায়৷ দুই বছর আগে নিয়ম মেনে বিয়ে হয় তার৷ তাদের দু’জনের একে অপরের প্রতি ভালোবাসায় কোনও কমতি ছিলনা৷ এমনকি পরপুরুষ কিংবা অন্য নারী নিয়েও কোনও সমস্যা ছিল না তাদের মধ্যে৷ শুধুমাত্র সমস্যা একটাই ছিল৷ তা হলো যৌনতা বা শারীরিক সম্পর্ক৷

তিনি জানান, প্রায় প্রতিদিনই একের পর এক চমক দিয়ে স্ত্রীয়ের কাছে যাওয়ার চেষ্টা করতেন স্বামী৷ কিন্তু কোনও কিছুই যেন তার স্ত্রীকে উত্তেজিত করত না৷ বিয়ের পর আটমাস কেটে যেতেও তাদের যৌন সম্পর্কে কোনও পরিবর্তন ঘটেনি৷ কিছু কিছু সময় দেখে মনে হত যে তার স্ত্রী জোর করে বাধ্য হচ্ছে৷ ধীরে ধীরে চূড়ান্ত ভেঙে পরেন তিনি৷ দিশেহারা হয়ে পরতেন কিভাবে তিনি তার স্ত্রীকে কাছে পাবেন৷

এরপর হঠাৎই একদিন কান্নায় ভেঙে পরেন তার স্ত্রী৷ স্বামীর সঙ্গে মনোমালিন্য হওয়ায় তিনি মন থেকে যে একেবারে কুঁকড়ে যাচ্ছিলেন সেটিই কান্নায় বেরিয়ে আসছিল যেন বারবার৷ এরপরই তারা দুজনে একসঙ্গে সিদ্ধান্ত নেন যে, তারা মনোরোগ বিশেষজ্ঞের কাছে যাবেন৷ এরপর শুরু হয় কাউন্সেলিং৷ কাউন্সেলিংয়ের পরই বেরিয়ে আসে আসল সত্যিটা৷

জানা যায়, তার স্ত্রী রক্ষণশীল পরিবারে মানুষ হয়েছিলেন ছোট থেকেই৷ আর ভারতের মধ্যবিত্ত পরিবারে রক্ষণশীল পরিবারে ছোট থেকেই মেয়েদের কানে মন্ত্রের মতন বলা হয় যে, শারিরীক সম্পর্ক একটি অত্যন্ত গুরুতর অপরাধ৷

এই ঘটনা সামনে আসার পর তারা তাদের বিবাহিত জীবনের পাট চুকিয়ে দেন। তারা আজ খুব খুশি৷ দুজনেই দুজনের ক্যারিয়ারে সাফল্যের শীর্ষে পৌঁছে গিয়েছেন বলে জানা গেছে৷ সুখী দাম্পত্য জীবনের একটি অন্যতম বিষয় শারিরীক সম্পর্ক৷ ছোট থেকেই যদি সন্তানকে আপনি এই বিষয়টির সঙ্গে সহজসরলভাবে মানিয়ে নেওয়াতে পারেন তাহলে আপনার সন্তানদের ভবিষ্যতটাই সুখের হবে৷

Top